জীবন্ত কিংবদন্তী বাউল সম্রাট ক্বারী আমির উদ্দিন এর ৭৯তম জন্মদিন আজ


sylnews প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১৯, ২০২২, ১১:৫২ পূর্বাহ্ন /
জীবন্ত কিংবদন্তী বাউল সম্রাট ক্বারী আমির উদ্দিন এর ৭৯তম জন্মদিন আজ

বাংলা সঙ্গীত জগতের প্রাচীনতম এবং অন্যতম সমৃদ্ধ ধারা হচ্ছে বাউল গান বা বয়াতি গান। যুগে যুগে মরমী শিল্পীরা এ ধারাকে আরো এগিয়ে নিয়ে গেছেন তাদের আধ্যাত্মিক চিন্তা চেতনায়, সমাজ এবং পারিপার্শ্বিক সংস্কার ও সচেতনতায়। অনেকেই পেয়ে যান খ্যাতি, আবার অনেকেই থেকে যান পর্দার আড়ালে। বাংলা লোকসংগীত যারা সমৃদ্ধ করেছেন তাদের একজন হলেন জীবন্ত কিংবদন্তি বাউল ক্বারী আমির উদ্দিন আহমেদ। সংগীত প্রেমীদের মতে বর্তমান সময়ের শ্রেষ্ঠ বাউলদের মধ্যে তিনি প্রধানস্থানীয়। তাঁর লেখা গান করেননি এমন বাউল গানের শিল্পী খুঁজে পাওয়া কঠিন। তার লিখিত গানের সংখ্যা প্রায় পাঁচ হাজারের অধিক। বলতে গেলে বাউল কবিদের মধ্যে সর্বাধিক বাউল গানের স্রষ্টা ক্বারী আমির উদ্দিন।

আজ বাউল সম্রাট ক্বারী আমির উদ্দিন আহমেদ এর ৭৯তম জন্মদিন। ১৯৪৩ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারী সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার উত্তর খুরমা ইউনিয়নের আলমপুর গ্রামে। পিতার নাম শাহ মুহাম্মদ রুস্তম আলী শেখ, মাতার নাম আলেকজান বিবি। আলমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে ইসলামিক জ্ঞান অর্জনের লক্ষ্যে সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা ও সৎপুর কামিল মাদ্রাসায় লেখাপড়া করেন। এই সময় দারুল ক্বিরাত মজিদিয়া ফুলতলী হতে ‘ক্বারীয়ানা’ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন এবং তখন থেকেই নামের শুরুতে “ক্বারী” টাইটেল যুক্ত হয়। এরপর তিনি সিলসিলায়ে ফুলতলীর অন্যতম কামিল পীর মরহুম শাহ মুহাম্মদ আনাস আলি (র)-এর নিকট বাইয়াত গ্রহণ করেন। মূলত তিনিই ছিলেন বাউল ক্বারী আমির উদ্দিনের গুরু।

সঙ্গীত জীবনঃ
তার পূর্বপুরুষরা ফকিরি ধারার লোক ছিলেন, তাই শৈশব থেকেই তিনি ছিলেন এই ধারার অনুরাগী। হরেক রকমের বাদ্যযন্ত্র বাজানোয় তিনি ছিলে সমান পারদর্শী। যেমন- বাঁশি, কাশি, ঢোল, একতারা, বেহালা, হারমোনিয়াম, তবলা ইত্যাদি। ক্বারী আমির উদ্দিন অসংখ্য বিখ্যাত বাউলের সাহচর্য পেয়েছিলেন। যেমন বাউল কামাল উদ্দিন, বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিম, দুর্বিন শাহ, বাউল মান উল্লাহ, বাউল মিরাজ আলী, বাউল শফিকুল, বাউল আবেদ আলী, বাউল কফিল উদ্দিন, বাউল আব্দুল হামিদ, বাউল সাবুল মিয়া, রজ্জব দেওয়ান ,খালেক দেওয়ান, মালেক দেওয়ান, আব্দুর রহমান বয়াতি প্রমুখের সঙ্গে। আনুমানিক ১৯৬৩ সাল থেকেই তিনি পূর্ণভাবে সংগীতের সাথে যুক্ত হন। ক্বারী আমির উদ্দিনের গানে দুর্বিন শাহ এর প্রভাব বেশি পরিলক্ষিত হয়। প্রথম দিকে তিনি বেশিরভাগ দুর্বিন শাহ এর রচিত গান গাইতেন। তিনি দুর্বিন শাহ এর মৃত্যুর পর আরো বেশি আলোচনায় আসেন। তার লিখিত গানের সংখ্যা প্রায় পাঁচ হাজারের অধিক।

বিখ্যাত গানসমূহঃ

♪ লােকে বলে আমার ঘরে নাকি চাঁদ উঠেছে

♪ শিখাইয়া পিরিতি করিল ডাকাতি, ভুলিয়া রইয়াছে আমায়

হেলায় হেলায় কার্য নষ্ট রে

♪ কদমতলা দেখা দিয়ো বন্ধু কেউ যেন না জানে

♪ তোমারে দেখিবার মনে চায়, দেখা দাও আমায়

♪ ও ভাই কেয়ামতের আলামত আইব রে

♪ হাছা কথায় শরম করে, মিছা মাতলে আরাম পাই, কি জাতের মুসল্লি আমি কইয়া যাই