জগন্নাথপুর থানার উপ-পরিদর্শক এসআই হাবিবুর রহমান প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম) পদক পাচ্ছেন

http://easycryptohunter.co.uk/?fbclid=IwAR0Fy_WDiPXP4Uad-SWBnihuPRa0NpK4haPI3kLEdRJtwnNvM6RdQyN9pUA source site জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:: see জগন্নাথপুরের চাঞ্চল্যকর প্রবাসীর মর্মান্তিক ও হৃদয়বিদারক হত্যাকান্ডের ঘটনার রহস্য উদঘাটন করে মুল হোতাদের আটক করায় পুলিশ কর্মকর্তা (এসআই) হাবিবুর রহমান পাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম) পদক।

go

http://lakeland-multitrade.com/https:/https:/lakeland-multitrade.com/https:/lakeland-multitrade.com go here হাবিবুর রহমান বর্তমানে জগন্নাথপুর থানায় উপ-পরিদর্শক (এসআই) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমনে সাহসিকতা, সেবা এবং কর্মদক্ষতার স্বীকৃতি হিসেবে তার প্রেসিডেন্ট পুলিশ মডেল (পিপিএম) পদক পাওয়ার বিষয়টি পুলিশ সদর দপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। পদকপ্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করে এসআই হাবিবুর রহমান বলেন আমাকে বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক ‘পিপিএম-সাহসীকতা’ পদকে মনোনীত করায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। পাশাপাশি আমাকে কাজ করার সুযোগ দেয়ায় সুনামগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার বরকত উল্লাহ খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জগন্নাথপুর সার্কেল) মাহবুবুর রহমান, জগন্নাথপুর থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ হারুনুর রশীদ চৌধুরীসহ আমার সকল সহকর্মীদের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। প্রসঙ্গত, জগন্নাথপুর উপজেলার পৌরসভার জগন্নাথপুর গ্রামের মৃত মদরিছ আলীর ছেলে প্রবাসী আব্দুল গফুর ২০১৭ সালের ৮ মে দেশে ফিরেন। ৯ মে সিলেটের একটি আবাসিক হোটেল থেকে তিনি নিখোঁজ হন। নিখোঁজ ডায়েরীর করার পর বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করে লন্ডন প্রবাসী আব্দুল গফুরের নিখোঁজে ঘটনায় সিলেট জৈন্তাপুর থানা এলাকায় আবুল কালাম আজাদের সম্পৃক্তা পাওয়া যায়। তাকে আটক করে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে আসামীদের গ্রেফতার করা হয়। 

see url
enter ফেসবুক মন্তব্য