রেফারেন্ডামে মওলানা ভাসানীর অবদান সিলেটবাসী কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করবে

সিলনিউজ২৪.কমঃ  শোষণ নিপীড়ন নির্যাতনের বিরুদ্ধে যতদিন সংগ্রাম চলবে, ততদিন মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী আমাদের প্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করবেন।বিশেষ করে আসামের কুখ্যাত লাইন প্রথা বিরোধী আন্দোলন, সিলেটে ’৪৭-এর রেফারেন্ডামে মওলানা ভাসানীর অবদান সিলেটবাসী কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করবে।সিলেট মোবাইল পাঠাগারের উদ্যোগে মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট জেলা বারের সাবেক সভাপতি এমাদ উল্লাহ শহিদুল ইসলাম একথা বলেন। নগরীর ইলেকট্রিক সাপ্লাই রোডস্থ মেট্টোপলিটন ল’ কলেজ ভবন মিলনায়তনে গত শনিবার সন্ধ্যায় সিলেট মোবাইল পাঠাগারের আলোচনা সভা ও ৬৯৮তম সাহিত্য আসরে সভাপতিত্ব করেন আজিজ বারীনূর স্মৃতি পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা এম এ গাফফার।আলোচনায় অংশ নেন, রোটারি ইন্টারন্যাশনাল-এরডিস্ট্রিক্ট গভর্নর প্রিন্সিপাল লে. কর্ণেল (অব.) এম.আতাউর রহমান পীর, সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সাংবাদিক ইকবাল সিদ্দিকী, কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সহ-সভাপতি সেলিম আউয়াল, ভাসানী ফাউন্ডেশনের সহসভাপতি এ.কে. এম আহাদুস সামাদ, ডেইলি ফাইন্যানসিয়াল এক্সপ্রেসের ডাইরেক্টর অধ্যাপক এম এ হান্নান, লেখক সালেহ আহমদ খসরু ও প্রাবন্ধিক মোহাম্মদ আব্দুল হক প্রমুখ।

সাহিত্যকর্মী তাসলিমা খানম বীথি’র উপস্থাপনায় মো: ইউসুফ আলী’র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া সাহিত্য আসরে লেখা পাঠে অংশ নেন, ঔপন্যাসিক সিরাজুল হক, কবি এম আশরাফ আলী, কবি মাহফুজ জোহা, লিটল ম্যাগ পলিমাটি সম্পাদক বাশিরুল আমিন, ছড়াকার সৈয়দ মুক্তদা হামিদ, কবি জয়নাল আবেদিন বেগ, ছড়াকার জুবের আহমদ সার্জন প্রমুখ।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx