নিউজটি পড়া হয়েছে 49

মুহাম্মদ আব্দুর রকীব চিরন্তন দর্শনকে তুলে ধরেছেন আপন কাব্যবয়ানে : অধ্যক্ষ কবি কালাম আজাদ

সিলনিউজ২৪.কমঃ ফেঞ্চুগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ কবি কালাম আজাদ বলেছেন, চিরায়ত জীবন দর্শনকে যারা সাহিত্য রচনায় সম্পৃক্ত করতে পারেন তারাই সত্যিকার অর্থে অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকেন। কবি মুহাম্মদ আব্দুর রকীব তাঁর কাব্যে চিরন্তন দর্শনকে তুলে ধরেছেন আপন কাব্যবয়ানে। তাঁর সহজাত মানসক্রিয়া,বিরহ-বেদনা, প্রেম-পরিণয়, আনন্দ-অধ্যাত্ববোধ এবং দর্শন তাঁকে  আত্মজৈবনিক প্রেমের কবি হিসেবে মূল্যায়িত করেছে।

পাপড়ি প্রকাশ-এর উদ্যোগে প্রবীণ কবি মুহাম্মদ আব্দুর রকীব’র ‘বিবর্ণ পান্ডুলিপি’কাব্যের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। গত শুক্রবার(১৬ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সিলেট নগরীর দরগাহ গেইটস্থ কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য আসর কক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।দৈনিক সিলেট সংলাপ পত্রিকার সম্পাদক মুহাম্মদ ফয়জুর রহমানের সভাপতিত্বে ও পাপড়ি প্রকাশ’র স্বত্ত্বাধিকারী ছড়াকার কামরুল আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সহ সভাপতি গল্পকার সেলিম আউয়াল, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি কবি মুহিত চৌধুরী, মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নলেজ হারবার স্কুল এন্ড কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল অধ্যাপক কবি নাজমুল আনসারী।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মুহাম্মদ আব্দুর রকীবের পুত্র কবি, ব্যাংকার আরিফ শাহেদ শাহরিয়ার, শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন পূবালী ব্যাংক লিমিটেড, মৌলভীবাজার জোনের সহকারী মহাব্যবস্থাপক চৌধুরী ইশফাকুর রহমান কোরেশী, সাহিত্য সমালোচক অধ্যাপক কবি বাছিত ইবনে হাবীব, কবি মামুন সুলতান, শাবিপ্রবির ডেপুটি রেজিস্ট্রার শিশু সংগঠক আহমদ মাহবুব ফেরদৌস, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা কবি অনিন্দ্য আনিস, প্রাবন্ধিক মুহাম্মদ আব্দুল হক, কানাইঘাট সাহিত্য সংসদেরসভাপতি কবি সরওয়ার ফারুকী, সাংবাদিক ফয়সল আহমদ বাবলু, বৃক্ষপ্রেমিক আব্দুল গফুর উমরা মিয়া, আব্দুল জলিল, কবি আমিনা শহীদ চৌধুরী মান্না, গল্পকার তাসলিমা খানম বীথি, ছড়াকার মিনহাজ ফয়সল।

অনুষ্ঠানে বিবর্ণ পান্ডুলিপি কাব্যগ্রন্থ থেকে কবিতা আবৃত্তি করেন আহমদ জারির, জাকির মোহাম্মদ নূরুলমুত্তাকিম নাফি, সংগীত পরিবেশন করেন তাওহীদ সুফিয়ান। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন কণ্ঠশিল্পী তাওহীদ সুফিয়ান। অনুষ্ঠানে সিলেটের সাহিত্য-সংস্কৃতির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ছাড়া কবি মুহাম্মদ আব্দুর রকীব’র সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সহ সভাপতি গল্পকার সেলিম আউয়াল বলেন, কবি মুহাম্মদ আব্দুর রকীব ইতিহাসের এক বটবৃক্ষ। আদর্শের প্রতি নিষ্টাবান থেকে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন, বিশ্বাসের প্রতি সুউচ্চ উচ্চারণ তাঁর আত্মসচেতনতা এবং ব্যক্তিত্বের পরিচয় বহন করে, তা অত্যন্ত গর্বের বিষয়। আশাকরি আত্মজীবনী লেখার মাধ্যমে ইতিহাসকে তুলে জাতি গঠনে ভূমিকা রাখবেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি কবি মুহিত চৌধুরী বলেন, কবি মুহাম্মদ আব্দুর রকীব মানবিক অনুভূতি, আনন্দ-বেদনাকে আধুনিকতার পরশে সৌন্দর্য দিয়েছেন কবিতার মাধ্যমে। তারপরও তিনি মানবিক ন্যায়-নীতি এবংমূল্যবোধকে পাশ কাটিয়ে যাননি। এটা তাঁর কাব্য প্রতিভার স্বতন্ত্রতা বহন করে।অনুভূতি ব্যক্ত করে প্রবীণ কবি মুহাম্মদ আব্দুর রকীব বলেন, আজকের এই অনুষ্ঠানে আপনাদের উপস্থিতি আমাকে আবেগাপ্লুত করেছে। সত্যিই তিনি ভাগ্যবান উল্লেখ করে সকলের দোয়া কামনা করেন। অনেক লেখা হারিয়ে যাওয়া সত্ত্বেও এরকম একটা প্রাপ্তি সত্যিই আনন্দের এবং গর্বের বিষয়।

সভাপতির বক্তব্যে দৈনিক সিলেট সংলাপ-এর সম্পাদক মুহাম্মদ ফয়জুর রহমান বলেন, পরিশীলিত সাহিত্য চর্চার মাধ্যমে মানুষের মূল্যবোধ এবং চিন্তা-চেতনার বিকাশ ঘটে। মানুষকে মহৎ কাজে উদ্বুদ্ধ করে। এসময় তিনি এরকম একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করে শেকড় সন্ধানী, জ্ঞানী ব্যক্তিদেরকে সম্মান প্রদর্শনে পাপড়ি প্রকাশ-এর স্বত্ত্বাধিকারী ছড়াকার কামরুল আলমকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx