দাওরায়ে হাদীস সনদের স্বীকৃতি কেউ কেড়ে নিতে পারবে না : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সিলনিউজ অনলাইনঃ একটি শিক্ষা তখন পূর্ণ হয় যখন ধর্মীয় শিক্ষা যুক্ত হয় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কওমি শিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিস সনদক মাস্টার্স ডিগ্রি সমমান করায় এখন থেকে কওমি শিক্ষার্থীরা দেশে-বিদেশে চাকরি পাবে। বিভিন্ন কাজে যুক্ত হতে পারবে।

আজ ৪ নভেম্বর (রোববার) রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দাওরায়ে হাদিসের সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি সমমান করায় প্রধানমন্ত্রীকে সম্মাননা জানাতে ‘আল-হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ আয়োজিত শোকরানা মাহফিলে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা সত্যিকারের ইসলাম ধর্মের মানুষ তারা কখনও জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ করতে পারে না। বাংলাদেশের মাটিতে কোন জঙ্গিবাদের স্থান হবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন- ধর্মের অবমাননা কেউ করলে কিংবা ধর্ম নিয়ে অপপ্রচার চালালে তাকে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে এবং যারা সোশ্যাল মিডিয়ায় ধর্মের অপব্যখ্যা- অপ্রপ্রচার করবে তাদেরকেও বিচারের আওতায় আনা হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন- কেউ গুজব ছড়ালে সেসব বিশ্বাস করবেন না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচারকারীদের খোঁজে বের করা হবে, সেটা নিয়ন্ত্রণ করতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে। সেই আইনেই তাদের বিচার করা হবে।

কওমী সনদের স্বীকৃতির কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, কেউ ক্ষমতায় এসে যেন কওমী মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদীছের সনদের মাস্টার্সের মর্যাদা কেড়ে নিতে না পারে সেজন্যই আইন করা হয়েছে। কেউ এই স্বীকৃতি কেড়ে নিতে পারবে না। আমার চাওয়া আপনারা এমনভাবে কাজ করবেন যেন তারা শিক্ষা পেয়ে দেশ ও জাতির জন্য কাজ করে।

উল্লেখ্য গত ১৯ সেপ্টেম্বর কওমি মাদ্রাসার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিসকে স্নাতকোত্তরের সমমান দিয়ে ‘কওমি মাদ্রাসাসমূহের দাওরায়ে হাদিসের (তাকমিল) সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি (ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি) সমমান প্রদান বিল, ২০১৮’ জাতীয় সংসদে পাস হয়।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx