সব ধরনের ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে : প্রধানমন্ত্রী

সিলনিউজ অনলাইনঃ মুক্তিযুদ্ধবিরোধী ও দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে ঐক্য করেছেন ড. কামাল হোসেন। তাদের কর্মকাণ্ডের বিষয়ে দেশবাসীকে সতর্ক থাকতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ (সোমবার) বিকাল ৪ টায় গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। শেখ হাসিনা তার সদ্য সমাপ্ত সৌদি আরব সফর নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সব ধরনের ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাজনৈতিক দল ঐক্যবদ্ধ হয়েছে এটাকে আমি স্বাগত জানাই। ড. কামাল হোসেন ঐক্যবদ্ধ হয়েছে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের সঙ্গে। যারা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে তাদের ভেতর আমি রাজনীতি খুঁজে পাচ্ছি না। 

ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, এখানে তো রাজনৈতিক স্বাধীনতা রয়েছে, কথা বলার স্বাধীনতা আছে, সাংবাদিকতার স্বাধীনতা আছে, সব কিছু মুক্ত। আমাদের বিচার বিভাগ স্বাধীন, সবই স্বাধীন। মানুষ স্বাধীনতা ভোগ করছে। সেই সুযোগ নিয়ে কিছু রাজনৈতিক দল ঐক্যবদ্ধ হয়েছে, সেটাকে স্বাগত জানাই। কারণ এটা প্রয়োজন আছে। তারা যদি সবাই ঐক্যবদ্ধ হতে পারে, তারা যদি রাজনৈতিকভাবে সাফল্য পায়, তাহলে তো অসুবিধা নাই। 

ঐক্যফ্রন্টের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই ঐক্যকে দেশের মানুষ কিভাবে নেবে সেটাই দেখার বিষয়। কারণ এই জোটে তো এমন লোকজনও আছে যারা নারীদের কটুক্তি করেন প্রকাশ্যে। এদের চরিত্র সম্পর্কে দেশের মানুষ ভালো জানেন।

দেশে গণতন্ত্র শক্ত ভিতের উপর দাঁড়িয়ে আছে এমনটি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণতন্ত্র আছে বলেই তো জোট হচ্ছে। নির্বাচন সামনে রেখে ঐক্যবদ্ধ হতে পারছে দলগুলো।

প্রসঙ্গত, সৌদি আরবে চার দিনের সরকারি সফর শেষে গত শুক্রবার মধ্যরাতে দেশে ফিরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৌদি বাদশাহ এবং দুটি পবিত্র মসজিদের খাদেম সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সউদের আমন্ত্রণে তিনি এ সফরে গিয়েছিলেন।

নির্বাচনকালীন সময়ে সরকারের পরিসর কেমন হবে এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে অনেকগুলো মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়িত হচ্ছে। যদি মন্ত্রিপরিষদ ছোট করা হয় তাহলে অনেকগুলো মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব তাদের একজন মন্ত্রীর কাঁধে অাসবে। ফলে প্রকল্পগুলোর উন্নয়ন ব্যাহত হবে কিনা তাও দেখার বিষয়। প্রধানমন্ত্রী এ সময় বলেন, অামি চাই প্রকল্পগুলো তাড়াতাড়ি শেষ হোক।

সুশীল সমাজের কোনো প্রতিনিধি মন্ত্রিসভায় থাকবেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সুশীল সমাজ সুশীল-ই থাকুক। তারা মন্ত্রিত্ব পেলে আর নির্বাচনকালীন সরকারে এলে তাদের বড় ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। তিনি বলেন, প্রয়োজনে নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা বড় হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ মন্ত্রিসভার সদস্য ও আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx