২০ দলীয় জোট ছাড়ল ন্যাপ ও এনডিপি।

সিলনিউজ অনলাইনঃ বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট ছাড়ল ন্যাপ ও এনডিপি। আজ (মঙ্গলবার) এক সংবাদ সম্মেলনে ২০ দল থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয় জেবেল রহমান গানি নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ ন্যাপ এবং খন্দকার গোলাম মর্ত্তোজা নেতৃত্বাধীন ন্যাশলান ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপি)।

বিকাল ৪ টায় রাজধানীর ইমানুয়েলন্স ব্যাঙ্কুয়েট হলে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এ দু’টি দল ২০১২ সাল থেকে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটে ছিল। বিএনপি জোটের প্রতি আনুগত্য দেখিয়ে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বয়কট করে তারা। ন্যাপ-এনডিপির অভিযোগ, জোটের জন্য বড় ত্যাগ স্বীকার করলেও তাদের সেভাবে মূল্যায়ন হয়নি।

প্রসঙ্গত এর আগেই আজকের জোট ছাড়ার কথা রেখেছিল এই দুটি দল। বিএনপি ড. কামাল. মাহমুদুর রহমান ও আ স ম রবকে নিয়ে ঐক্যফ্রন্টে যাওয়ায় তাঁরা এ সিদ্ধান্ত নেয়।

ন্যাপ ও এনডিপির নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে কিনা, তা এখনও অন্ধকারে। অন্যদিকে পর-পর দুই নির্বাচনে অংশ না নিলে আরপিও অনুযায়ী কোনও দল আবারও নির্বাচনে অংশ না নিলেও নিবন্ধন বাতিল হবে। এ কারণে দলদুটো চায়, প্রচলিত আইন মেনেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত থাকতে।

জেবেল রহমান গাণির সঙ্গে কথা বলে স্পষ্ট যে, ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল ১৮ দলীয় জোট গঠনের মধ্য দিয়ে বিএনপির সঙ্গে জোটবদ্ধ হয় বাংলাদেশ ন্যাপ, এনডিপিসহ তাদের সমমনা আটটি দল। গত ছয় বছরের বেশি সময়ে তারা বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে অবিচল ছিলেন জোটে। আর বিএনপি থেকে বেরিয়ে আসার কারণগুলোর মধ্যে অন্যতম কারণ হলো, গত ১৩ অক্টোবর বিএনপি, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া, জেএসডি ও নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আত্মপ্রকাশ।

ন্যাপ ও এনডিপির নেতারা মনে করেন, এই ঐক্যফ্রন্ট গঠনের মধ্য দিয়ে ২০ দলীয় জোটকে নিষ্ক্রিয় করে ফেলা হবে। আর এর মধ্য দিয়ে বিএনপিই মূলত জোটকে বিলুপ্ত করে দিতে চাইছে। যদিও সোমবার  রাতে ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া উপস্থিত ছিলেন। জোটের সেই বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের জানানো হয়, ঐক্যফ্রন্টকে স্বাগত জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ২০ দলীয় জোট। একইসঙ্গে ঐক্যফ্রন্টে চারটি দলকে যুক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়।

সূত্রঃ একুশে টিভি 

ফেসবুক মন্তব্য
xxx