নিউজটি পড়া হয়েছে 101

সন্তানের জন্য মায়ের অনুভূতি : তানিয়া সুলতানা তানি

আমার জীবনের এক বিরল অনুভুতির কথা আজ বলছি।আমি মা হয়েছি সেই অনুভুতির কথা।বিয়ের আগে শুনতাম নিজে মা না হলে এই অনুভুতি বোঝা যায় না।তখন এসব নিয়ে এত গভীর ভাবে কখনও ভাবিনি।কিন্তু আজ বুঝতে পারছি।

আমি যখন প্রথম বুঝতে পেলাম একটা জীবন আমার মাঝে দিন দিন বেড়ে উঠছে তখন প্রথমে বিশ্বাস হতে চাইতনা, এটা কি সত্যি? যখন প্রথম ও আমার পেটে লাথি মারল আমি ওকে স্পর্শ করতাম আমার হাত দিয়ে আর বলতাম তুই আমার সন্তান।মাঝে মধ্যে এত জোড়ে লাথি দিত যে চোখ দিয়ে পানি চলে আসত, তারপরও শান্তি পেতাম এটা ভেবে যে আমার সন্তান সুস্থ আছে।

দেখতে দেখতে ৭ই অক্টোবর চলে এল।অপারেশনের মাধ্যমে আমার সন্তান এই দুনিয়ার মুখ দেখল।অপারেশন থিয়েটারে ওর কান্নার আওয়াজ কানে সুমধুর শব্দ মনে হচ্ছিল। কোন এক নার্স বাবুকে আমার মুখের পাশে স্পর্শ করিয়ে বলল আপনার ছেলে হয়েছে। সারা শরীর অবশ থাকার কারনে আমি না পারছিলাম কথা বলতে, না একটু ধরতে। খুব ইচ্ছা করছিল ছেলেকে একটা চুমু খেতে, বুঝতে পারছিলাম আমার দু’চোখ বেয়ে পানি পড়ছে, যাকে বলে আনন্দের কান্না। শুধু বললাম ওকে আমি আগে কোলে নিবো না, আগে আমার মায়ের কোলে দিয়ে আসেন, আমার মা আমার জন্য অনেক করেছেন।

গত পরশু (৭ অক্টোবর) আমার ছেলে ৬ বছরের পা দিলো। জন্মের পর সারা রাত ঘুমাতো সে, দিনেও বেশী ভাগ সময়, শুধু খাওয়ার সময় একটু কেঁদে উঠত, সামান্যতম বিরক্তি করেনি সে। অনেক সময় অসুস্থ হলে ভাবতাম আজ বুঝি রাত জাগতে হবে, কিন্তু না, ওর যতই কষ্ট হোক, আমাকে কষ্ট দেইনি। সন্তানের জন্য কেমন চিন্তা হয় এটা কেবল কোন মা-ই অনুভব করতে পারে। যখন ও কথা বলতে শিখেছে। সব শব্দ এখনও ঠিক মতো বলতে পারে না। ল, র এই দুই অক্ষরকে সে ‘ন’ উচ্চারণ করে। এত পাকা পাকা কথা বলে কী আর বলব! সারাদিন তার প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতে আমিই ক্লান্ত হই। আমি যদি কখনও কোন কারণে মন খারাপ করি বা একটু চুপ করে বসে থাকি ছেলে আমার কাছে এসে বলে- আম্মূ লাগ (রাগ) কৈনোনা, মন খানাপ কইলনা, আল দুষ্টামি কলবনা। ওর ধারণা হয়ত ওর কোন কারনে আমি মন খারাপ করেছি। এই কথা শুনলে কোন মায়ের মন ভালো হবে না। আমি হেঁসে দেই। মনে মনে ভাবি আমার ছেলেটা দেখতে দেখতে কত বড় হয়ে গেছে। আজ ও আমার মন ভালো করার চেষ্টা করছে।একটা অব্যক্ত শান্তীতে মন ভরে যায়।

”আমার সুখের জায়গা আমার সংসার,
যেথা ভালবাসা দোলা দিয়ে যায় বারবার।
ক্লান্ত আমায় করে না এখানে ক্লান্তি
আমার ঘরে আছে অনাবিল শান্তি।
সুখের হরিণের খোঁজে যারা
বনের পানে ভাগো,
নিজের সংসারেই তাকিয়ে দেখো
লুকিয়ে আছে আজও”

আমার ছেলের শখ গাড়ী। কত গাড়ী যে কিনে দিয়েছি তার হিসাব নেই, এখন সে পড়াশুনায় বেশ মনোযোগী, স্কুলেও বেশ সুনাম তার, পর পর ২ বার স্কুল চ্যম্পিয়ান বাচ্চাটা আমার। যখন আমি বাবা হারিয়েছি খুব ভেংগে পড়েছিলাম, ও এসে বল্ল আম্মু আমিইতো তুমার বাবা, তুমি আমাকে বাবা বলবা। সত্যিই ও ই আমার বাবা।

কিন্তু আজ বুঝি।আজ আমার ছেলে যখন মুরগির এক টুকরো রান তার ছোট ছোট দাত দিয়ে কুটুস কুটুস করে আমার সামনে বসে খায় আর বলে-
“আম্মু মজা” তখন মনে হয় এর থেকে ভালো লাগার কথা আর কি হতে পারে? আজ আমার আর ইচ্ছা করেনা ভালো কোন কিছু খেতে, মনে হয় এটা আমার সন্তান খাক ও খেলেই আমার পেট ভরে যাবে। এখন আমি বুঝতে পারি সন্তানের জন্য মায়ের অনুভুতি কেমন।

ছেলেটা কোন কারনে অসুস্ত হলে আল্লাহকে বলি ওর সব অসুখ আমাকে দিয়ে দাও, এর বদলে আমার সন্তানকে সুস্থ করে দাও। আজ আমার স্বপ্ন, চিন্তা ভাবনার কেন্দ্রবিন্দু একমাত্র আমার সন্তান আমার ছেলে। 

সবাই ওর জন্য দোয়া করবেন।

তানিয়া সুলতানা (তানি)

ফ্যাশন ডিজাইনার, ঢাকা

ফেসবুক মন্তব্য
xxx