নবীগঞ্জের ক্রাইমজোন বোয়ালজুরে প্রতিপক্ষের হাতে নিহত ওয়াহিদের দাফন সম্পন্ন।

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি।। নবীগঞ্জ উপজেলার ক্রাইমজোন হিসেবে পরিচিত দীঘলবাক ইউনিয়নের বোয়ালজুর গ্রামে প্রতিপক্ষের হাতে নিহত মোঃ ওয়াহিদ মিয়ার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। আজ (শনিবার) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় নিহতের নিজ গ্রাম বোয়াল জুর গ্রামের পশ্চিম মাঠে তাঁর নামাজে জানাজা শেষে তাঁকে দাফণ করা হয়। জানাজার নামাজে পুলিশ, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি ও এলাকার সহস্রাধিক শোকার্ত মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

নামাজে জানাযায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নবীগঞ্জ থানার ওসি শেখ মোঃ সোহেল রানা, (ওসি তদন্ত) নুরুল ইসলাম, ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ শামসুদ্দীন খাঁন, দীঘলবাক ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ এওলা, ইনাতগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রশিদ, নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সহ-সভাপতি এম, মুজিবুর রহমান, স্থানীয় ইউপি সদস্য ফখরুল ইসলাম জুয়েল, দীঘলবাক ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুজাত চৌধুরী, সাবেক মেম্বার আশিক মিয়াসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

অভিযোগ গ্রাম্য মোড়লকে অমান্য করে চলাফেরা করার জের ধরেই ওয়াহিদ মিয়া (৫০) নামের ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়েছে।

গতকাল (শুক্রবার) বিকেল ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ওয়াহিদ ওই এলাকার চান মিয়ার পুত্র।এ ঘটনার খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ওসি সোহেল রানা তাৎক্ষণিক একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বোয়ালজুর গ্রামের গিয়াস উদ্দিন ও পরাশ উদ্দিনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। ওয়াহিদ গিয়াস উদ্দিনের পক্ষের লোক, সাম্প্রতি ওয়াহিদ মিয়া গিয়াস উদ্দিনকে অমান্য করে চলাফেরা করলে এতে ক্ষুব্ধ হন গিয়াস উদ্দিনসহ তার লোকজন এঘটনার সূত্র ধরে শুক্রবার বিকেলে ওয়াহিদ মিয়াকে ধরে নিয়ে গিয়াস উদ্দিনের বাড়িতে মারধর করা হয়। পরে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

পরে খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ওসি শেখ মোঃ সোহেল রানার নেতৃত্বে ওসি (তদন্ত) নুরুল ইসলাম,ইনাতগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশের পুলিশ পরিদর্শক সামছদ্দিন খানসহকারে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোঃ সোহেল রানা নিহতের ঘটনায় জানাজার নামায পূর্বক এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, এই বোয়ালজুর গ্রামে যতটি হত্যাকান্ড হয়েছে সবকটির তথ্য পুলিশের কাছে আছে, এই ধরনের জগন্যতম কার্যকলাপ যারা করছেন তাদের কাউকেই ছাড় দেয়া হবেনা। নিহত ওয়াহিদ এর হত্যাকারী যে বা যারাই হোক তাদের কাউকেই ছাড় দেয়া হবেনা বলেও তিনি জানান, এছাড়াও ঘটনার সাথে প্রকৃত জড়িত খুনীদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসীর সহযোগিতা কামনা করেন।  এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়ের করা হয়নি বলেও জানান থানার ওসি। তবে জড়িতদের আটক করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানান তিনি।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx