নিউজটি পড়া হয়েছে 63

নবীগঞ্জে মোটর সাইকেল চোর চক্র সক্রিয়, প্রভাবশালী সিন্ডিকেট জড়িত।

নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জের জনবহুল ও ব্যস্থতম বাজার আউশকান্দি হীরাগঞ্জ। উক্ত বাজার এলাকায় ইদানিং সিদেল চোর মাদক ব্যবসায়ীরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। গত কয়েক মাস পূর্বে আউশকান্দি হীরাগঞ্জ বাজারস্থ সোনাহর মিয়া চৌধুরীর মার্কেটে রক্ষিত দিনদুপুরে ক্ষুদে ব্যবসায়ী আলী হোসেনের একটি মোটর সাইকেল চুরি করে নিয়ে যায় দূর্বৃত্তরা। অনেক খোঁজাখুঁজির পর এক পর্যায়ে চোরাই মোটর সাইকেলের সন্ধান পাওয়া যায়।চোরাই সাইকেলটি শ্রীমঙ্গল একটি চোরাই সিন্ডিকেটের নিকট বিক্রি করে দিয়েছে। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চোরাই সাইকেলটি দিন দুপুরে উক্ত মার্কেট থেকে একই উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের রুস্তমপুর গ্রামের মৃত সিরাজ মিয়ার ছেলে নাহিদ মিয়া, ফুটারচর গ্রামের মামদ মিয়ার ছেলে রায়হান মিয়া ও আউশকান্দি গ্রামের মৃত মোমিন কারীর ছেলে নাঈম মিয়াসহ একটি চক্র মোটর সাইকেলটি চুরি করে বিক্রয় করে। এদের মধ্যে আউশকান্দি গ্রামের চোর নাঈম এই চুরির ঘটনা আউশকান্দি বাজার ব্যবসায়ীসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সামনে তাকে হাজির করা হলে সে চুরির ঘটনাটি স্বীকার করে।

আউশকান্দি মধ্য বাজার যাত্রী ছাউনীতে মোটর সাইকেল এর মালিক আলি হোসেন গত ২৩ সেপ্টেম্বর সোমবারে স্থানীয় লোকজনকে জড়ো করলে এসময় উপস্থিত বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মুজিবুর রহমান, স্থানীয় ইউপি সদস্য খালেদ আহমদ জজ, বিশিষ্ট সালিশ বিচারক ফকির ফজলু মিয়া, কৃষকলীগ নেতা মহসিন আহমেদ, কাছন মিয়া, লেছু মিয়া, ছালিক মিয়া ও দেবপাড়া ইউপি’র সাবেক মেম্বার জমির মিয়াসহ অর্ধশতাধিক লোকজনের সামনে চুরির ঘটনার বর্ণনা দেয় নাঈম।

তাৎক্ষণিক এ বিষয়টি বাজার এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এই ঘটনাটি ধামাচাপা দিয়ে মোটর সাইকেল মালিককে মোটা অংকের টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে প্রভাবশালীরা। মোটর সাইকেলের মালিক তার সাইকেল বাবদ ২০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ পেয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন।

অপরদিকে চোর চক্র এঘটনার স্বীকারোক্তির পরে রয়ে যায় বহাল তবিয়তে। এতে সচেতন মহলের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এদেরকে আইনের আওতায় এনে এলাকায় চুরি ডাকাতি রোধকল্পে তড়িৎ পদক্ষেপ নেয়ার জন্য প্রশাসনের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx