পচাত্তরের পরবর্তী সরকারগুলো চায়নি বাংলাদেশ নিজ পায়ে দাঁড়াক : প্রধানমন্ত্রী

সিলনিউজ অনলাইনঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জিয়া-এরশাদ ও খালেদা জিয়ার সরকারগুলোর চিন্তা ছিল বৈরি। ওই সময়ে সারের দাবিতে ১৮ জন কৃষককে জীবন দিতে হয়েছিল। জানি না এমন ঘটনা আর কোথাও ঘটেছে কি-না।

আজ ৮ সেপ্টেম্বর (শনিবার) সকালে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন ৬ষ্ঠ জাতীয় কনভেনশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পচাত্তরের পরবর্তী সরকারগুলোর চিন্তা ছিল ব্যবসা। তাঁরা চায়নি বাংলাদেশ নিজ পায়ে দাঁড়াক। তারা চেয়েছিল বাঙালি বিক্ষুক জাতি হিসেবে থাকুক। তাই তো বিএনডিসি বন্ধ করে দিয়েছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ ৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে কৃষিকে গুরুত্ব দেওয়া শুরু করে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পন্ন। এক সময় সারের জন্য কৃষককে জীবন দিতে হয়েছে। আজ সার কৃষকের দোঁড়গোড়ায় পৌছে দেওয়া হচ্ছে।

কৃষিপণ্য উৎপাদনের পাশাপাশি প্রক্রিয়াজাত করণে সংশ্লিষ্টদের প্রতি তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের প্রয়োজনে মিটিয়ে কৃষিপণ্য রফতানির লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে সরকার। আজ ২ কোটি ১৩ লাখেরও বেশি মানুষ কৃষি উপকরণ কার্ড পেয়েছে। তাঁদের কাছে কৃষি উপকরণ পৌছে যাচ্ছে। আমরা কৃষকদের ১০ টাকায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। আজ বর্গাচাষীরা জামানতবিহীন ঋণ পাচ্ছে। ১ কোটি কৃষক ভর্তুকি পাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জমির সীমাবদ্ধাতা থাকা সত্বেও উর্বরতাকে কাজে লাগিয়ে দেশকে খাদ্য স্বয়ংসম্পূর্ণ করার কাজ করে যাচ্ছে সরকার। পাশাপাশি উন্নত গবেষণার ও কৃষকদের সুযোগ-সুবিধা প্রদানের মধ্য দিয়ে দেশ কৃষিখাতে এগিয়ে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত রয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, কৃষক লীগের সাবেক সভাপতি ড. মির্জা জলিল, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম প্রমুখ।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx