আওয়ামী লীগকে রেখে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার ঘোষণা হাস্যকর : ওবায়দুল কাদের

সিলনিউজ অনলাইনঃ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগকে রেখে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার ঘোষণা হাস্যকর ছাড়া আর কিছুই নয়।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ছাড়াও ১৪ দলে আরো দল রয়েছে। মহাজোটের শরীক জাতীয় পার্টি রয়েছে। দেশে আমাদের জোট ও মহাজোটের বিশাল সমর্থক গোষ্ঠী রয়েছে। দেশের বিশাল এই জনগোষ্ঠীকে বাদ দিয়ে কখনো জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়।

সেতুমন্ত্রী কাদের আরো বলেন, জাতীয় ঐক্যের নামে দেশে সাম্প্রদায়িক মেরুকরণের চেষ্ঠা করা হচ্ছে। যা দেশের জন্য কখনো শুভ হতে পারে না।

মন্ত্রী আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে সাংগঠনিক কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করার লক্ষ্যে আয়োজিত রাজশাহী জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানের প্রারম্ভিক বক্তব্যে একথা বলেন।

সভায় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যরিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদের সদস্য এস এম কামাল হোসেনসহ রাজশাহী জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ‘জাতীয় ঐক্য’ শব্দ দুটি ব্যবহার না করার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, যে নামেই তারা যান, ‘জাতীয় ঐক্য’ শব্দ দুটি তাদের ব্যবহার না করাই ভালো।

তিনি বলেন, রাজনীতিতে প্রতিযোগিতা থাকা ভাল, গণতন্ত্রে প্রতিযোগিতা থাকবেই। আর নির্বাচন মানেই প্রতিযোগিতা, সেটা নির্বাচনে হবে। তাই আগামী জাতীয় নির্বাচনে যে কোন জোটকে আমরা স্বাগত জানাই। তিনি বলেন, আমরাও ১৪ দলীয় জোট করেছি। এছাড়াও আমাদের মহাজোট রয়েছে। জাতীয় পার্টি মহাজোটে রয়েছে। বিএনপির নেতৃত্বেও ২০ দলীয় জোট রয়েছে। আবার যুক্তফ্রন্ট নামেও একটি জোট আত্মপ্রকাশ করেছে।
কাদের আরো বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে জোট-মহাজোট গঠিত হতে পারে। তবে আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে কখনো জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবে না।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, নির্বাচন কমিশন (ইসি) ঘোষণা করবে কখন নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করবে এবং কখন জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এটা সরকার বা দলের কাজ নয়। বাসস

ফেসবুক মন্তব্য
xxx