বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০১৮ খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সিলনিউজ অনলাইন ঃঃ বাংলাদেশ শ্রম (সংশোধন) আইন, ২০১৮-এর খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। খসড়ায় মালিক ও শ্রমিকদের বিভিন্ন অপরাধের শাস্তি কমিয়ে আনা হয়েছে। মালিকদের জিম্মি করে শ্রমিকরা ধর্মঘট করা যাবে না বলে উল্লেখ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে শ্রমিকদের উৎসব ভাতা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। দুর্ঘটনায় হতাহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ দ্বিগুণ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

আজ ৩ সেপ্টেম্বর (সোমবার) সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এই অনুমোদনের কথা জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রস্তাবিত আইনে মালিক ও শ্রমিকদের অসদাচরণ বা বিধান লঙ্ঘনের জন্য শাস্তি সর্বোচ্চ এক বছরের কারাদণ্ড বা ১০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড। আগে কারাদণ্ডের পরিমাণ ছিল ২ বছর।

প্রস্তাবিত আইনে ট্রেড ইউনিয়নকে উৎসাহিত করা হয়েছে। ধর্মঘট ডাকার ক্ষেত্রে আগে দুই তৃতীয়াংশ শ্রমিকদের সমর্থন লাগত নতুন আইন অনুযায়ী সেটা ৫১ শতাংশ হচ্ছে।

দুর্ঘটনায় হতাহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ দ্বিগুণ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। কিশোররা কারখানায় কাজ করতে পারবে, কিন্তু শিশুরা করতে পারবে না।

তিনি বলেন, শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষা ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির জন্য ২০০৬ সালে প্রথম এই আইনটি করা হয়েছিল। ২০১৩ সালে এটির অনেক বড় সংশোধন হয়। প্রায় ৯০টি ধারা সংশোধন হয়। আজকেও অনেকগুলো ধারা সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে।

‘আইএলও (বিশ্ব শ্রম সংস্থা) এর কনভেনশন অনুযায়ী এটাকে (শ্রম আিইন) আপডেট করার জন্য অর্থাৎ শ্রমবান্ধব পলিসি সব জায়গায় যাতে নিশ্চিত হয় সেটার জন্য আইনটি সংশোধনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সূত্রঃ একুশে টিভি 

ফেসবুক মন্তব্য
xxx