বিদেশের মাটিতে ৯ বছর পর সিরিজ জিতল বাংলাদেশ।

সিলনিউজ অনলাইনঃ ইতিহাস গড়েই সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। সেন্ট কিটসে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রথম দল হিসেবে তিনশ রানের লক্ষ্য টপকাতে হতো। স্বাগতিকদের সেই রেকর্ডটা করতে দেয়নি বাংলাদেশ। শুরুতে ম্যাচসেরা ও সিরিজসেরা তামিমের সেঞ্চুরি আর মাহমুদউল্লাহর অপরাজিত ফিফটিতে বড় সংগ্রহ গড়ার পর দুর্দান্ত বোলিংয়ে ১৮ রানে ম্যাচ জিতে নিয়েছে লাল-সবুজরাই। সঙ্গে তিন ওয়ানডের সিরিজও।

টেস্ট সিরিজে অসহায় আত্মসমর্পণের বিদেশের মাটিতে ৯ বছর পর সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। ২০০৯ সালের আগস্টে জিম্বাবুয়ে সফরে ৪-১ এ জেতা সিরিজের পর এটিই প্রথম। আর দেশ-বিদেশ মিলিয়ে দুই বছর পর সিরিজ জয়।

 

সেন্ট কিটসে আগে ব্যাট করে সিরিজের শেষ ম্যাচে নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেটে ৩০১ রান তোলে বাংলাদেশ। এই ম্যাচেই ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে প্রথমবার তিনশ ছুঁয়েছে টাইগাররা। উইন্ডিজের বিপক্ষে আগের সর্বোচ্চটি ছিল ২৯২ রান, ২০১২ সালে খুলনায়। আর স্বাগতিকদের মাটিতে আগের সর্বোচ্চ ছিল এই সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে করা ২৭৯ রান।

জবাব দিতে নেমে ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ২৮৩ রানের বেশি এগোতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

প্রথম দুম্যাচে যেখানে তিরিশের কোটাই পেরোয়নি উইন্ডিজের উদ্বোধনী জুটি, এই ম্যাচে সেখানে পেরিয়ে গেল ফিফটি। সেখানেই ত্রাতা টাইগার অধিনায়ক। সিরিজে তৃতীয়বারের মতো আউট করেছেন লুইসকে। ক্রিস গেইল, সঙ্গী লুইস থাকেন মন্থর খেলার পরও ১০.১ ওভারে ৫৩ রান তুলে ফেলে স্বাগতিকরা। ৫৩ রানের জুটি ভাঙে ম্যাশ। বাঁহাতি ওপেনার ৩৩ বলে করে যান ১৩ রান।

(ম্যান অব দ্যা সিরিজ তামিম ইকবাল)

অন্যদিকে ফিফটি তুলে নেয়ার পথে হোপকে নিয়ে ৫২ রানের আরেকটি জুটি গড়েন গেইল। বিপজ্জনক হয়ে ওঠা এই বাঁহাতি লংঅন দিয়ে রুবেলকে উড়িয়ে মারতে যেয়ে মিরাজের হাতে ধরা পড়েছেন। থামে ছয় চার পাঁচ ছক্কায় ৬৬ বলে ৭৩ রানের ইনিংস। পঞ্চম ছক্কাটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে গেইলের ৪৭৬তম। তাতে স্পর্শ করেছেন পাকিস্তানের শহিদ আফ্রিদির সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ড।

আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান শিমরন হেটমায়ারকে নিয়ে পরে লড়াইয়ে এগিয়ে যান শাই হোপ। তাদের ৬৭ রানের জুটি ভেঙে হেটমায়ারকে (৩০) বোল্ড করে মিরাজ বাংলাদেশকে ম্যাচে ফেরান।

মিরাজের বলেই রুবেলের হাতে ৩৬ রানে জীবন পাওয়া হোপ থেমেছেন ৬৪ রানে। ৯৪ বলের ইনিংসটি থামাতে এগিয়ে আসতে হয় মাশরাফীকে। আবার অফকাটারে সাফল্য। ডিপ মিডউইকেট দিয়ে টাইগার অধিনায়ককে বাউন্ডারি ছাড়া করতে যেয়ে সাকিবের তালুবন্দী হোপ।

হোপ ফিরলেও ত্রাস হয়ে দেখা দিয়েছিলেন রোভম্যান পাওয়েল। ঝড়ো ফিফটি তুলে চোখ রাঙাচ্ছিলেন। ২৭ বলে পঞ্চাশ তুলে নেন। বাংলাদেশের বিপক্ষে উইন্ডিজের কোনো ব্যাটসম্যানের যেটি দ্বিতীয় দ্রুততম ফিফটি। প্রথমটি ব্রায়ান লারার, ২৬ বলে। পাওয়েল শেষপর্যন্ত ম্যাচটা ছিনিয়ে নিতে পারেননি। ৫ চার ও ৪ ছক্কায় ৪১ বলে ৭৪ রানের অপরাজিত ইনিংসটি তাই পরাজিতের খাতায়।

এর আগে ব্যাটিংয়ে দারুণ শুরু করে বাংলাদেশ। একাদশে টিকে যাওয়া এনামুল হক বিজয় বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ৩১ বলে মাত্র ১০ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। 

সেখান থেকেই ঘুরে দাঁড়ান তামিম ও সাকিব। দ্বিতীয় উইকেটে ৮১ রান যোগ করেন ৯৬ বলে। সিরিজে আগের দুই ম্যাচে এই দুজনের জুটিতে এসেছিল ২০৭ ও ৯১ রান। গত ১০ ইনিংসে দুজনে তিনবার সেঞ্চুরি জুটি আর পাঁচবার ফিফটির জুটি গড়লেন।

আগের দুই ম্যাচের মতো এদিন অবশ্য ফিফটি পাননি সাকিব। ৩ চারে ৪৪ বলে ৩৭ রানে ফিরেছেন নার্সকে স্লগসুইপ খেলতে যেয়ে পলের ক্যাচ হয়ে। নার্সের বলেই বাজে শটে বোল্ড হয়েছেন গত ম্যাচে নায়ক হতে হতে সুযোগ হাতছাড়া করা মুশফিক (১২)।

তবে একপ্রান্তে তামিম আগলে ছিলেন এদিনও। মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে ৪৬ বলে ৪৮ রানের জুটি গড়ার পথে সেঞ্চুরি তুলেছেন। ফিরেছেন ১২৪ বলে ১০৩ রানে। ৭ চার ও ২ ছয়ের ইনিংসটি তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ১১তম শতক।

গায়নায় সিরিজের প্রথম ম্যাচে ১৩০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেছিলেন তামিম। পরের ম্যাচে ৫৪। সিরিজে সবমিলিয়ে ২৮৭ রান। এক সিরিজে দুটি সেঞ্চুরি করলেন দ্বিতীয়বার। ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে হোম সিরিজে দুটি সেঞ্চুরি ও একটি ফিফটি করেন এ বাঁহাতি। সেবার তিন ম্যাচে করেছিলেন ৩১২ রান। সফরকারী দলের পক্ষে উইন্ডিজে তিন ম্যাচের সিরিজে সর্বোচ্চ রানও এখন তামিমের। আগের রেকর্ডটি ছিল ড্যারেন লেহম্যানের (২০৫)।

তামিম ফেরার পর চমক হয়ে আসেন ছয় নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামা মাশরাফী। মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে ৫৩ রানের জুটি গড়েন ৭ ওভারে। ৪ চার ও এক ছক্কায় ২৪ বলে ৩৬ করে কাজের কাজটা সেরে যান অধিনায়ক।

তিনশর পথে বাকি কাজটুকু এগিয়ে নেন ৪৯ বলে ৬৭ রানে অপরাজিত থাকা মাহমুদউল্লাহ। শেষ ১০ ওভারে বাংলাদেশ যে ৯৬ রান তুলল, তাতে রিয়াদেরই অবদান বেশি। ৫ চারের সঙ্গে ৩ ছক্কার ইনিংস তার। শেষদিকে সাব্বির ৯ বলে ১২, মোসাদ্দেক ৫ বলে অপরাজিত ১১ রানের অবদান রাখলে তিনশ ছোঁয় বাংলাদেশ। যে সংগ্রহটি শেষপর্যন্ত এনে দিল সিরিজ জয়ই।

সিল/চ্যা আই

ফেসবুক মন্তব্য
xxx