পায়রা প্রকাশ লেখক সম্মেলন ও বুক রিভিউ পুরষ্কার বিতরণী

সিলনিউজ২৪.কমঃ কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সহ-সভাপতি লে.কর্নেল কবি সৈয়দ আলী আহমদ (অব.) বলেছেন, একজন লেখকের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা মূখ্য বিষয় নয়। লেখতে লেখতে একদিন সে লেখক হয়ে ওঠে। নিরন্তর প্রচেষ্টার মাধ্যমে লেখা উন্নত হয়, স্বচ্ছ হয়। লেখা যদি শৈল্পিক হলে, মানসম্মত হয় ৫০ বছর পরও সেটি মূল্যায়িত হবে। পায়রা প্রকাশ আয়োজিত পায়রা প্রকাশ লেখক সম্মেলন ও বুক রিভিউ পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। দৈনিক সিলেট সংলাপের সম্পাদক লেখক গবেষক মুহাম্মদ ফয়জুর রহমান সভাপতিত্বে গতকাল শুক্রবার কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য আসর কক্ষে আয়োজিত সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন কবি ও গবেষক মুসা আল হাফিজ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা কালচারাল অফিসার অসিত বরণ দাস গুপ্ত, আমাদের গল্পকথা’র প্রধান সমন্বয়ক ও প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সৈয়দ আসাদুজ্জামান সুহান। এমসি কলেজের শিক্ষার্থী তানজিনা আক্তার’র সঞ্চালনায় ও কবি এম এ আসাদ চৌধুরী’র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পায়রা প্রকাশনের স্বত্বাধিকারী সংগঠক কবি সিদ্দিক আহমদ এবং শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, কবি অধ্যক্ষ কালাম আজাদ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক সুমন আকন্দ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. রিজাউল ইষলাম, কবি আবু বক্কর সিতু,
সাহিত্য সমালোচক অধ্যাপক বাছিত ইবনে হাবীব, কলামিস্ট মোহাম্মদ আব্দুল হক, সাজিদুর রহমান, ইউনুস আকমাল, জামিল আহমদ ফাহিম, মোহাম্মদ কবি মাহবুব কবির, সাদেক আহমদ,পপী রশিদ, লিপি খান, শব্দ কথার সম্পাদক মনসুর আহমদ,মাহবুবা সুলতানা, ইকরা টিভি’র মাওলানা মাহফুজ আহমদ,কামাল আহমদ, শাহ ইদ্রিছ, মাছুমা টফি একা প্রমুখ।

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে কবি ও গবেষক মুসা আল হাফিজ বলেন, মননশীলতার দিক দিয়ে সিলেট অনেক এগিয়ে গেছে। জ্ঞানচর্চা,মননশীলতা ও চিন্তাশীলতার দিক দিয়ে সিলেটের প্রভাব রয়েছে।এটি একটি জাগরণের লক্ষণ। একটি টিউবওয়েল থেকে প্রথমে যখন পানি বের হয় সে পানি হয় কাদামিশ্রিত। যা খাওয়ার উপযোগি না। কয়েকবার যখন পানি তোলা হয় তখন সেই টিউবওয়েল থেকে স্বচ্ছ পানি আসে। ঠিক তেমনি একটি বিপ্লব, আন্দোলন শুরু হয় তখন প্রথম থেকেই কাদা মিশ্রিত পানি ওঠতে থাকে। এটি সিলেটের শুরু হয়েছে। অচিরেই স্বচ্ছপানি আসবে। কবিরা সুগন্ধী বিলিয়ে বেড়ায়। যিনি কাঁচাহাতে লিখছেন তিনিই একদিন আলো ছড়িয়ে বেড়াবেন।সিলেটের অলিগলিতে আমরা হাঁটবো তবে কোন মাদকসেবীর সাথে নয়। আলোর পথে হাঁটবো। মানবিক গুণ একদিনে তৈরি হয়না। যে লেখক একটি বই বের করতে পারে তিনি কখনো আনাড়ী লেখক হতে পারে না। পরিচ্ছন্ন ও মানবিক মানসিকতা পরিচয় দিচ্ছে পায়রা প্রকাশ। মানব জীবনে উপরে সিড়িঁর নাম হচ্ছে সাহিত্য। আমাদের মানবিক জীবন গড়ে তোলে সাহিত্য। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সিলেটের জেলা কালচারাল অফিসার অসিত বরণ দাস গুপ্ত বলেন, পায়রা যেভাবে কাজ করে যাচ্ছে এটিপরিপূর্ণ ভাবে গড়ে ওঠবে। প্রতিযোগিতায় টিকতে হলে কোয়ালিটি ঠিক রেখে এগিয়ে যেতে হবে। তাহলে বিজয়ী হতেপারবে। সুচিন্তা যে জাতির মধ্যে থাকবে সে জাতি একদিন নিজের পায়ে দাঁড়াবে এবং সুচিন্তার ভেতরে রেখে প্রকাশনাকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নিতে অব্যাহত রাখবে।

বিশেষ অতিথি বক্তব্যে আমাদের গল্পকথা প্রধান সমন্বয়ক ও প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সৈয়দ আসাদুজ্জামান সুহান বলেন, লেখকরা সময় সময় ভুল দরজায় কড়া নাড়ে। আমরা সঠিক দরজা খুঁজে পাই না। একজন প্রকাশক সঠিক নির্দেশনা পেলে প্রকাশনা সঠিক পথে হাঁটবে। পায়রা যে সাহসিকতা দেখাচ্ছে তা আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলে আমার বিশ্বাস। সভাপতির বক্তব্যে দৈনিক সিলেট সংলাপের সম্পাদক লেখক গবেষক মুহাম্মদ ফয়জুর রহমান বলেন, সিলেটে প্রকাশনী অনেক এগিয়ে গেছে। সিলেটের প্রকাশনা ক্ষেত্রে এক ঝাঁক তরুণ কাজ করছে।প্রকাশনীর ক্ষেত্রে কম সময়ে কবি সিদ্দিক আহমদ সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। প্রকাশনা শিল্প আগামীতে সিলেটে আরো বিস্তৃত হবে। পায়রা প্রকাশনী একদিন স্বনাধন্য প্রকাশনী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx