নিউজটি পড়া হয়েছে 179

এ কেমন শত্রুতা! নবীগঞ্জে রাতের আধারে ফসলী জমির লাউগাছ কর্তন।

স্টাফ রিপোর্টার ।। নবীগঞ্জ উপজেলার দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চল হিসেবে খ্যাত দিনারপুর এলাকার বুড়িনাঁও গ্রামে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন কর্তৃক হামলা, জায়গা জবরদখল করেও শান্ত হয়নি একটি প্রভাবশালী মহল।

গতকাল (বুধবার) রাতের আধারে প্রায় এক কেদার ফসলি জমির লাউগাছ চারা নির্বিচারে কর্তন করেছে দুর্বৃত্তরা। এতে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় ইউপি কৃষি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা দিলাওয়ার হোসেন। এঘটনায় প্রতিপক্ষের লোকজনকে দায়ী করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবার।

এঘটনার পূর্বে গত (৬-জুলাই) শুক্রবার ভোর সকালে সংঘবদ্ধ ভাবে প্রতিপক্ষের লোকজন হামলা করে স্বামী-স্ত্রীকে অমানুষিক নির্যাতন করে গুরুতর আহত করা হয় । এবং তাদের টং দোকার ঘরের মালামালসহ টং দোকান ঘরটি পুকুরে ফেলে দেয়।

আহত স্বামী-স্ত্রীকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আশংকাজনক ভাবে ভর্তি করা হয়। আহতরা হলেন ঐ গ্রামের লেচু মিয়ার মেয়ে ৩ সন্তানের জননী ফাতেমা আক্তার (খেনা) (৩৩) তার স্বামী কমরু মিয়া (৪০)। হামলার ঘটনায় নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা রেকর্ড করা হয়েছে।

কৃষকের ফসলী জমির ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা শুনে বৃহস্পতিবার সকালে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা শেষে বাড়িতে এসে নিজের ফলানো ফসলের এ অবস্থা দেখে তিনি বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন লেচু মিয়ার জামাতা কৃষক কমরু মিয়া।

এজাহারে উল্লেখ ও নির্যাতিত পরিবারের লোকজন জানান, উপজেলার পানিউমদা ইউনিয়নের বুড়িনাঁও গ্রামের লেচু মিয়ার সঙ্গে জায়গা সংক্রান্ত বিষয়াদি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে একটি প্রভাবশালী মহলের সাথে।

এরই জের ধরে গত (৬জুলাই) শুক্রবার সকালে নিজের টং দোকান ঘরে ঘুমিয়ে থাকা লেচু মিয়ার মেয়ের জামাতা কমরু মিয়ার উপর নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন। এসময় প্রভাবশালী আপ্তাব উদ্দিন, ইমাম উদ্দিন সহ সঙ্ঘবদ্ধ একদল লোকজন তাকে একা পেয়ে তার ওপর রামদা, ফিকলসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এলোপাথাড়ি হামলা করেন বলে তিনি জানান। সেই সময় স্বামীকে বাঁচাতে স্ত্রী ফাতেমা আক্তার(খেনা) এগিয়ে আসলে তার উপরও হামলা চালায় হামলাকারীরা । এসময় প্রায় ৭০হাজার টাকা মূল্যের দোকানের যাবতীয় মালামাল ও ,নগদ ১৫ হাজার টাকা নিয়ে যায় তারা এবং ঐসময় ২০হাজার টাকা মূল্যের টং দোকানটি পুকুরের পানিতে ফেলে দেয় ।

এমনকি আদালতের ১৪৪ ধারা অমান্য করে বিরোধপূর্ণ জায়গাটি জবরদখল করে বাঁশের বেড়া দিয়ে গাছ রোপণ করায় গ্রামে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে ।

ফসলী জমিতে লাউ গাছের চারা কর্তনের খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার এস আই পার্থ রঞ্জন চক্রবর্তীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

এব্যাপারে মামলার বাদী লেচু মিয়া বলেন, প্রতিপক্ষের লোকজন আমাদের উপর অমানবিক নির্যাতনের স্ট্রিমরোলার চালিয়েছে । আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি । তাই প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এব্যাপারে অভিযুক্ত ইমাম উদ্দিন সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এসব অভিযোগ অস্বীকার করেন ।

নবীগঞ্জ থানার এস আই পার্থ রঞ্জন চক্রবর্তী বলেন,হামলার ব্যাপারে মামলা রেকড করা হয়েছে,আসামীদের ধরতে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে ।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx