মৌলভীবাজারে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি।

সিলনিউজ অনলাইন ঃঃ মৌলভীবাজারে উঁচু এলাকায় বাড়ির ভিটা থেকে নেমে গেছে বন্যার পানি। বাড়িতে ফিরতে শুরু করেছেন বাসিন্দারা। তবে, সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি এখনো। বন্ধ রয়েছে কুলাউড়ার চাতলাপুর স্থলবন্দর। আস্তে আস্তে দৃশ্যমান হচ্ছে বন্যার ভয়াবহতার ছাপ ভাঙা ব্রিজ, সড়কে বিশাল গর্ত, মাটিতে মিশে যাওয়া বসতঘর, নষ্ট হয়ে যাওয়া ফসল।

এমন ভয়াবহ বন্যা এর আগে দেখেনি মৌলভীবাজারবাসী। জেলার কুলাউড়া, কমলগঞ্জ, রাজনগর ও মৌলভীবাজার সদরের প্রায় ৩ লাখ মানুষ পানিবন্দি। তলিয়ে গেছে গ্রামীণ জনপদের মাঠঘাট, সড়ক, ফসলি জমি, পুকুর, গবাদি পশু-পাখি। বাঁচার তাগিদে আশ্রয় খুঁজছেন দুর্গতরা। কারো ঠাঁই হয়েছে পানিবন্দি ঘরের ছাদে।

আটকে পড়াদের উদ্ধারে উপজেলা গুলোতে কাজ করছে সেনাবাহিনী, রয়েছে পুলিশও। সিলেট থেকে ট্রাকে নৌকা নিয়ে সাধারণ মানুষও স্বেচ্ছায় উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে  বলে জানিয়েছেন মৌলভীবাজার রাজনগর থানার উপ-পরিদর্শক শংকর দত্ত।

উদ্ধার হওয়া বেশির ভাগ মানুষ আত্মীয়ের বাড়ি চলে গেলেও অনেকের মাথা গোজার ঠাঁই হয়েছে আশ্রয়কেন্দ্রে। কিন্তু আশ্রয় কেন্দ্র এখনও পৌঁছায়নি সরকারি সহায়তা।

রাজনগরের কামারচাক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নজমুল হক সেলিম বলেন, ‘লোকজন এত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের সার্বিক সহযোগিতা করতে হবে।’

কুলাউড়া, রাজনগর ও মৌলভীবাজারের মনু নদীর ৯টি জায়গায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। পানির স্রোতে শহর রক্ষার বাঁধ ভেঙে মৌলভীবাজার শহরেও বন্যা দেখা দিয়েছে।

এবারের ভয়াবহতা আগের সব বন্যার রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের অভিযোগ বার বার ভাঙন দেখা দিলেও মনু নদীর দুপাড় রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।

সূত্রঃ সময় টিভি 

ফেসবুক মন্তব্য