নিউজটি পড়া হয়েছে 234

বাংলাদেশের মহাকাশ জয় : বঙ্গবন্ধু-১ এর সফল উৎক্ষপণ

সিলনিউজ অনলাইন ::: বঙ্গবন্ধু-১ এর সফল উৎক্ষপণের মধ্যে দিয়ে স্যাটেলাইট যুগে পা রাখলো বাংলাদেশ। রাত ২টা ১৪ মিনিটে উৎক্ষেপণের পর যোগাযোগ স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট এখন কক্ষপথে। তবে কক্ষপথের নির্ধারিত জায়গায় পৌঁছাতে সময় লাগবে বেশ কয়েকদিন।

কেনেডি স্পেস সেন্টারের ‘থার্টি নাইন ‘এ’ লঞ্চ প্যাড। উৎক্ষেপণের জন্য প্রস্তুত বাংলাদেশের প্রথম যোগাযোগ স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১।

আনুষ্ঠানিক উৎক্ষেপণ প্রক্রিয়ার শুরুতে তরল অক্সিজেন এবং রকেট গ্রেড কেরোসিন- আরপি ওয়ানের বিক্রিয়ায় প্রসারিত গ্যাস বের হয় প্রচন্ড বেগে। আর নিউটনের গতির তৃতীয় সূত্র মেনে অবিশ্বাস্য গতিতে ছুটতে শুরু করে ফ্যালকন নাইন ব্লক ফাইভ।

মাত্র এক মিনিটের মধ্যে গতি পৌঁছে যায় ঘণ্টায় প্রায় এক হাজার কিলোমিটারে। এই পর্যায়টির নিয়ন্ত্রণ করে রকেটের একেবারে নিচের অংশ বা স্টেজ ওয়ান। উৎক্ষেপণের প্রায় আড়াই মিনিট পর ভূপৃষ্ঠ থেকে থেকে ৭০ কিলোমিটার ওপরে পৌঁছে খুলে যায় স্টেজ ওয়ান। বাকি অংশের গতি তখন ঘণ্টায় প্রায় আট হাজার কিলোমিটার।

স্টেজ ওয়ান ফিরে আসে পৃথিবীতে, আর রকেটটির নিয়ন্ত্রণ তখন স্টেজ টুর কাছে। এটি আরো তীব্র গতিতে স্যাটেলাইটকে পৌঁছে দেয় নির্ধারিত কক্ষপথের দিকে। যাত্রা শুরুর সোয়া ৮ মিনিটের দিকে পৃথিবী থেকে প্রায় ১৭০ কিলোমিটার দূরে স্যাটেলাইট থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় স্টেজ টু। এ সময় এর গতিবেগ পৌঁছায় ঘণ্টায় ৩৬ হাজার কিলোমিটারে। প্রায় ৩৪ মিনিট পর কক্ষপথে পৌঁছায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট।

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের কক্ষপথ ১১৯ দশমিক ১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি এবং কোরিয়ার তিনটি গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে নিয়ন্ত্রণ করে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরের কক্ষপথের নির্ধারিত অংশে স্থাপন করা হবে, যাতে সময় লাগতে পারে প্রায় ৮ দিন। এরপরেই নিয়ন্ত্রণ হস্তান্তর করা হবে বাংলাদেশের গ্রাউন্ড স্টেশনে।

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটি নির্মাণ করেছে ফ্রান্সের প্রতিষ্ঠান তালেস এলিনিয়া স্পেস। আর একে কক্ষপথে পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ অনুসন্ধান ও প্রযুক্তি কোম্পানি স্পেসএক্স। সর্বাধুনিক ফ্যালকন নাইনের ব্লক ফাইভ মডেলের রকেটের সাহায্যে মহাকাশে পাঠানো হয় বঙ্গবন্ধু-১।

গাজীপুরের জয়দেবপুর ও রাঙ্গামাটির বেতবুনিয়ায় এরই মধ্যে প্রস্তুত হয়েছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের গ্রাউন্ড স্টেশন। ১৫ বছর টানা কার্যকর থাকবে এই স্যাটেলাইট।

সুত্র: ইন্ডিপেনডেন্ট টিভি

ফেসবুক মন্তব্য
xxx