সিলেটে জনসাধারনের প্রতি পুলিশের ১৩ সতর্কবার্তা।

সিলনিউজ২৪.কমঃ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র মাহিদ আল সালাম নিহত হলেন ছিনতাইকারীদের হাতে।তারপর ক’দিন যেতে না যেতেই আবার খুন! এবার জোড়া হত্যাকান্ডের শিকার হলেন মা-ছেলে, নগরীর মিরাবাজারে। তার আগে শাবিতে হামলার শিকার হলেন দেশবরেণ্য বুদ্ধিজীবি, লেখক শিক্ষক অধ্যাপক মুহাম্মদ জাফর ইকবাল। আরও আগে টিলাগড়ে কয়েকটি রাজনৈতিক হত্যাকান্ড। হযরত শাহজালাল ও শাহপরাণ (র.) এর পবিত্র মাটি থেকে শান্তি যেনো উধাও হওয়ার পথে। এক ধরণের চাপা আতংকে যখন সিলেট মহনগরের সর্বস্তরের নাগরিকবৃন্দ, তখন জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য কাজ শুরু করেছে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি)। নগরবাসীর জন্য কিছু বিষয়ে সতর্ক থাকতে নির্দেশনা জারি করেছেন তারা। গণমাধ্যমে পাঠানো সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তিতে তারা সুনির্দিষ্টভাবে ১৩টি বিষয় উল্লেখ করেছেন। মঙ্গলবার (৩এপ্রিল) এসএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) মুহম্মদ আব্দুল ওহাব স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তির প্রথমেই উল্লেখ করা হয়েছে সিএনজি গ্যাস চালিত অটোরিকশা যাত্রীদের কথা। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, আগে থেকে অপরিচত লোক অটোরিকশায় বসে থাকতে দেখলে, তা যেনো এড়িয়ে যাওয়া হয়। যাত্রীবেশী ছিনতাইকারীদের সুযোগ না দিতেই এই নির্দেশনা। দ্বিতীয়টিও যানবাহন ব্যবহার সংক্রান্ত। এক্ষেত্রে বলা হয়েছে, গণপরিবহন ব্যতিত অন্য যেকোন ধরণের যানবাহন ব্যবহার করতে যেনো বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা হয়। তৃতীয় নির্দেশনায় বাসস্ট্যান্ডে পরিচিত লোক ছাড়া কারও কাছে ব্যাগ বা মূল্যবান কোন জিনিসপত্র রাখতে নিষেধ করা হয়েছে। চতুর্থ নির্দেশনায় লোক চলাচল কম এমন রাস্তা এড়িয়ে যেতে বলা হয়েছে। পঞ্চম নির্দেশনায় অপরিচিত কারও দেওয়া খাবার বা পানীয় গ্রহন করতে নিষেধ করা হয়েছে। ষষ্ঠ নির্দেশনায় এসেছে টাকার প্রসঙ্গ। বলা হয়েছে বড় অংকের টাকা বহন করতে যেনো পুলিশের সাহায্য নেওয়া হয়। সপ্তম নির্দেশনায় আবারও যাত্রী প্রসঙ্গ। বলা হয়েছে, সুর্য উঠার আগ পর্যন্ত যেনো যাত্রীরা বাস কাউন্টার ত্যাগ না করেন। এ সময়টাতে সবাই ধৈর্য ধরে কাউন্টারেই যেনো অবস্থান করেন। অষ্টম নির্দেশনায় অটোরিকশা যাত্রীদের সতর্কতা অবলম্বনের জন্য নির্দিষ্ট গাড়ির রেজিস্ট্রেশন নম্বর নিজের কাছে লিখে রাখতে বা মোবাইল মেসেজে আত্মীয়স্বজনদের কাউকে দিয়ে রাখতে বলা হয়েছে। নবম নির্দেশনায় আছে সন্দেহভাজন মোটর সাইকেল ব্যবহারকারীদের ব্যাপারে সতর্ক বার্তা। দশম নির্দেশনায় আছে বড় বা লোকচলাচল বেশি, তেমন রাস্তা ব্যবহার করার পরামর্শ। একাদশ নির্দেশনা মোটর সাইকেল ব্যবহারকারীদের জন্য। তাদের বলা হয়েছে, নিজের গাড়িটি যেখানে পার্কিং করা হবে, সেখানে যেনো সতর্কতার সাথে তা তালাবদ্ধ করে রাখা হয়। দ্বাদশ নির্দেশনায় বলা হয়েছে, সিএনজি চালিত অটোরিকশার চালক সন্দেহজনক আচরণ করলে বা হঠাৎ মাঝপথে গাড়ি থামিয়ে দিলে সাথে সাথে যেনো পুলিশের সহায়তা নেওয়া হয়, বা যাত্রী যেনো তখন নিকটস্থ পুলিশ চেকপোস্টে নেমে পড়েন। ত্রয়োদশ নির্দেশনায় সন্দেহজনক কোন ব্যাক্তি বা বস্তু প্রত্যক্ষ করলে, বা যে কোন অভিযোগ মতামত জানাতে পুলিশের কয়েকটি নম্বর দিয়ে জানাতে বলা হয়েছে। নম্বরগুলো হচ্ছে ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম ০৮২১-৭১৮০২৮ ডিবি কন্ট্রোল রুম ০৮২১-৭২০০৬৬, ওসি, কোতয়ালি-০১৭১৩৩৭৪৫১৭ ওসি, জালালাবাদ-০১৭১৩৩৭৪৫২২, ওসি,এয়ারপোর্ট ০১৭১৩৩৭৪৫২১, ওসি, দক্ষিণ সুরমা-০১৭১৩৩৭৪৫১৮, ওসি, শাহপরাণ(র:)-০১৭১৩৩৭৪৩১০, ওসি, মোগলাবাজার-০১৭১৩৩৭৪৫১৯, পুলিশ কমিশনার-০১৭১৩-৩৭৪৫০৬, অতিঃ পুঃ কমিশনার- ০১৭১৩-৩৭৪৫০৭ ডিসি (সদর ওপ্রশাসন) ০১৭১৩-৩৭৪৫০৮, ডিসি (উত্তর) ০১৭১৩-৩৭৪৫০৯, ডিসি (দক্ষিণ) ০১৭১৩-৩৭৪৫১০, ডিসি (ট্রাফিক) ০১৭১৩-৩৭৪৫১১। পুলিশের এই সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তিটিকে অবশ্য সাধারণ নগরবাসীদের কেউ কেউ তেমন কার্য্যকর উদ্যোগ বলে মনে করছেন না। তাদের মতে, এসব বিষয়েতো সাধারণ মানুষ যথেষ্ট সচেতন। আসলে খুন-খারাবী ও আইনশৃঙখলা পরিস্থিতির অবনতির জন্য দায়ীদের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা জরুরী। তাহলেই কেবল জনমনে শান্তি ও স্বস্তি ফিরতে পারে। আবার কেউ কেউ মনে করছেন, পুলিশের এই বিজ্ঞপ্তিটি যথাযতভাবে প্রচার হলে জনসচেতনা বৃদ্ধি পাবে, এতে কোন সন্দেহ নেই।

ফেসবুক মন্তব্য