নিউজটি পড়া হয়েছে 107

প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে যেসব ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে ।

সিলনিউজ অনলাইন ডেস্কঃ  এবারের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে শিক্ষার্থীদের ৩০ মিনিট আগেই পরীক্ষাকেন্দ্রে গিয়ে পৌঁছাতে হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মোবাইল নম্বরে সেটকোড ব্যবহারের নির্দেশনার এসএমএস যাওয়ার পর প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলা যাবে। বুধবার (২৮ মার্চ) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এসব কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এইচএসসিতে প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছি আমরা। এক্ষেত্রে আগের চেয়ে অনেক বেশি কৌশলী পন্থায় এগোচ্ছি।’

জানা গেছে, কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছাড়া অন্য কেউ মোবাইল ফোন বা ইলেক্ট্রনিক ডিভাইজ নিয়ে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন না। ছবি তোলা যায় না এমন একটি মোবাইল সেট ব্যবহার করতে পারবেন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

অতীতের মতো এবারও সম্পূর্ণ নকলমুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা হবে বলে আশা শিক্ষামন্ত্রীর। তার ভাষ্য, ‘২০১২ সালে কেবল বাংলা প্রথম পত্রে সৃজনশীল পরীক্ষা হয়েছিল। ২০১৫ সাল পর্যন্ত ১৩টি বিষয়ের ২৫টি পত্রে সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৭ থেকে মোট ২৮টি বিষয়ে ৫৪টি পত্রে সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।’

মন্ত্রী জানিয়েছেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস ও ফাঁসের গুজবের সঙ্গে জড়িত ১৫৭ জনকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। এসএসসিতে প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থাও নেওয়া হয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানা যায়, এবার তত্ত্বীয় পরীক্ষা চলবে ২ এপ্রিল থেকে ১৩ মে পর্যন্ত। ব্যবহারিক পরীক্ষা চলবে ১৪ মে থেকে ২৩ মে পর্যন্ত। পরীক্ষায় অংশ নেবে ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ছাত্র ৬ লাখ ৯২ হাজার ৭৩০ জন ও ছাত্রী ৬ লাখ ১৮ হাজার ৭২৭ জন। সারাদেশের ২ হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে এইচএসসি পরীক্ষা।

সূত্রঃ  বাংলা ট্রিবিউনে

ফেসবুক মন্তব্য
xxx