নিউজটি পড়া হয়েছে 95

অমর একুশে গ্রন্থমেলার উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ঃঃ অমর একুশে গ্রন্থমেলার উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠল মাসব্যাপী একুশের বইমেলার। আজ (বৃহস্পতিবার) বিকেলে বাংলা একাডেমী চত্বরে প্রতি বছরের মতো এবারও ১ ফেব্রুয়ারি ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলার’ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে আগামী ২২ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠেয় দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন তিনি।

এরই মধ্যে বইমেলার জন্য প্রস্তুত হয়ে গেছে বইমেলায় অংশগ্রহণকারী ৪৫৫টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের স্টলগুলি। বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গনসহ সোহরাওয়ার্দীর উদ্যানের নির্ধারিত জায়গা জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ভাষার মাসের আবহ। বিকেল ৩টায় বাংলা শুরু হয় মেলার উদ্বোধনী আয়োজন। উদ্বোধনী পর্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন বিভাগের কিশোর বাতায়ন প্লাটফর্ম এবং একসেসিবেল ডিকশনারির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

পরে উদ্বোধনী বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, শুধু বই বেঁচাকেনার জন্য বই মেলা হয় না। বই মেলা আমাদের প্রাণের মেলা। বই মেলা টানে। এই মেলায় অনেক নবীন লেখক তাদের লেখালেখি প্রকাশের সুযোগ পায়। এই মেলায় আমাদের জ্ঞান চর্চার দ্বার উন্মুক্ত হয়। মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষায় সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে।

বাংলা একাডেমীর সভাপতি এমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে এতে আরো উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, যুক্তরাজ্যের লেখক এগনিস মিডোসম, ক্যামেরুনের ড. জয়েস অ্যাসউন টেনটেন, মিশরের ইব্রাহিম এলমাসরি ও সুইডেনের অরনে জনসন।

উদ্বোধনের আগে প্রধানমন্ত্রী এবছর বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে সম্মাননা তুলে দেন। এবছর কবিতায় মোহাম্মদ সাদিক ও মারুফুল ইসলাম, কথাসাহিত্যে মামুন হোসাইন, প্রবন্ধে অধ্যাপক মাহবুবুল হক, গবেষণায় অধ্যাপক রফিকউল্লাহ্ খান, অনুবাদে আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়া, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্যে কামরুল ইসলাম ভুঁইয়া ও সুরমা জাহিদ, ভ্রমণকাহিনীতে শাকুর মজিদ, নাটকে মলয় ভৌমিক, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে মোশতাক আহমেদ এবং শিশুসাহিত্যে ঝর্ণা দাশ পুরকায়স্ত এবার বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন।

ফেসবুক মন্তব্য