নিউজটি পড়া হয়েছে 134

১৫২ বছর পর বুধবার একসঙ্গে দেখা যাবে সুপারমুন, ব্লু মুন ও চন্দ্রগ্রহণ

 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান জানিয়েছে,  ৩১ জানুয়ারি সূর্যাস্তের আগে উত্তর আমেরিকার পশ্চিমাঞ্চল থেকে এ বিরল দৃশ্য দেখা যাবে। আর আন্তর্জাতিক তারিখ রেখার কারণে মধ্য ও পূর্বাঞ্চলীয় এশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, নিউ জিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বেশিরভাগ এলাকায় এ দৃশ্য দেখা যাবে ৩১ জানুয়ারি সূর্যাস্তের পর। ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি একটি সুপারমুন দেখা গিয়েছিল। ৩১ জানুয়ারি আরেকটি সুপারমুন দেখা যাবে। একই মাসে দ্বিতীয় পূর্ণিমা বলে এটি ব্লু মুনও। আবার এদিন চন্দ্রগহণও হবে।

সাধারণ হিসেবে বলা যায়, চন্দ্র বছর সৌর বছরের তুলনায় গড়ে এগারো দিন কম হয়ে থাকে। এই অতিরিক্ত দিনগুলোর কারণে গড়ে প্রতি ২ দশমিক ৭ বছরে সৌরবর্ষপঞ্জীতে এক মাসে দু’টি পূর্ণিমা ঘটে। একইভাবে প্রতি ১৯ বছরে ৭ বার দেখা পাওয়া যায় ব্লু মুনের।  প্রায় ৪০০ বছর ধরে চলে আসা ‘ব্লু ‍মুন’ ধারণাটির জন্য প্রথমে ভাবা হত তা আসলেই নীল দেখায়। তবে আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন ‘ব্লু মুন’ প্রকৃতপক্ষে দেখতে মোটেও নীল নয়। তবে আকাশে ধুলোবালি বা ধোঁয়ার কারণে চাঁদকে কখনও কখনও সাময়িকভাবে নীলাভ মনে হতে পারে। এটি সময়ের ধারাবাহিকতায় সংঘটিত হওয়া একটি মহাজাগতিক ঘটনা ছাড়া আর কিছুই নয়। সাধারণত সৌর বর্ষপঞ্জিতে ১২টি পূর্ণ চন্দ্র মাস হয়ে থাকে। তবে সৌর মাসের তুলনায় চন্দ্র মাসের দৈর্ঘ্য কম। চান্দ্রমাস ২৯.৫ দিনে সম্পন্ন হয়। এ বছর জানুয়ারি ও মার্চ মাসে দুই বার করে পূর্ণিমা দেখা যাবে। তাই এক ব্যতিক্রমী বাস্তবতায় দুই মাসেই ব্লু মুনের দেখা মিলবে। সাধারণত ১৯ বছর পর পর এমন এক বছরে দুইবার ব্লু ‍মুনের দেখা পাওয়া যায়। এর আগে ১৯৯৯ সালেও জানুয়ারি ও  মার্চ মাসে ব্লু মুনের দেখা পাওয়া গিয়েছিল। এরপর একই বছরে দুই বার ব্লু মুন দেখা যাবে ২০৩৭ সালে।

উল্ল্যেখ্য যে, প্রায় ১৫২ বছর পর আগামী ৩১ জানুয়ারি (বুধবার) আরেকটি বিরল মুহূর্তের সাক্ষী হতে যাচ্ছে বিশ্ব। এদিন একই সময়ে ব্লু মুন, সুপারমুন ও চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে। সর্বশেষ ১৮৬৬ সালের ৩১ মার্চ এমন বিরল দৃশ্য দেখা গিয়েছিল।

 

সূত্র: ফার্স্ট পোস্ট, দ্য গার্ডিয়ান, কোয়ার্টজ

ফেসবুক মন্তব্য