নিউজটি পড়া হয়েছে 118

ছাতকে বিনা চিকিৎসায় রোগির মৃত্যু, এলাকায় তোলপাড়।

চান মিয়া, ছাতক (সুনামগঞ্জ) থেকেঃঃ ছাতক উপজেলা হাসপাতালের বেডে বিনা চিকিৎসায় রোগি মারা যাবার ঘটনায় সর্বত্র ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। গত বুধবার রাতে মৃত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, শহরের কুমনা এলাকার মোশাহিদ আলীর রিক্সা গেরেজের রিকশা চালক মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার কান্দিরগাঁও গ্রামের সুরুজ মিয়ার পুত্র সুন্দর আলী (৪৫) গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পেটের ব্যথায় হাসপাতাল রোডে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে উপস্থিত কয়েকজন লোক তাকে ছাতক হাসপাতালে নিয়ে যান।

এসময় হাসপাতালে কর্তব্যরত ডাঃ আজাদুর রহমান ও ডাঃ ফারুকুল ইসলাম উপযুক্ত অভিভাবকের অজুহাত দেখিয়ে রোগিকে ভর্তি করেননি। উল্টো কর্তব্যরত ডাক্তাররা রোগির সাথে আসা লোকদের সাথে দূর্ব্যবহার করেন। এসময় সুন্দর আলী নিজের চিকিৎসার জন্যে ডাক্তারদের কাছে তার নিজ চিকিৎসার জন্যে মিনতি করেন এবং বন্ডসই দিতেও রাজি হন। কিন্তু এতেও মন ভেজেনি ডাক্তারদের। অবশেষে ব্যথার যন্ত্রণায় কাতর হয়ে সুন্দর আলী নিজেই হাসপাতালের একটি বেডে শুয়ে পড়েন।

ঐদিন রাতে ও পরের দিন বুধবার সকালে রোটিনমাফিক ডাক্তার ওয়ার্ড পরিদর্শনে আসলেও সুন্দর আলীকে ডাক্তার ও নার্স ওষুধ বা ব্যবস্থাপত্র দেয়নি।

অবশেষে, বুধবার বেলা আনুমানিক ২টার সময় হাসপাতালের বেডেই তিনি মারা গেলে ওয়ার্ড ক্লিনার অঞ্জনা রানী ও শুক্লা রানী লাশটি হাসপাতাল থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার অপচেষ্ঠা চালায় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার অভিজিৎ শর্মা বিনা চিকিৎসায় রোগির মারা যাবার সত্যতা স্বীকার করে সিলনিউজ২৪’ কে বলেন, ২৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ওই রোগি হাসপাতালে ভর্তি হতে আসে। এসময় তাকে গার্জিয়ান নিয়ে আসার জন্যে বলা হয়। গার্জিয়ান না আনতে পারা তার চিকিৎসা করেননি ডাক্তাররা।

সুনামগঞ্জ সহকারি পুলিশ সূপার (ছাতক-দোয়ারা) মো. দোলন মিয়া জানান, ঘটনার ব্যাপারে ম্যাসেজ পেয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তি ব্যবস্থা নেয়া হবে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) সুনামগঞ্জে ময়না তদন্ত শেষে লাশ নিজ বাড়িতে পাঠানো হয়েছে।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx