সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে নেপালকে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: প্রথমবারের মতো আয়োজিত সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে শুভ সূচনা করেছে বাংলাদেশ। তহুরার হ্যাটট্রিকে নেপালকে উড়িয়ে দিয়েছে ৬-০ গোলে। এছাড়া দলের পক্ষে জোড়া গোল করেছন আনুচিং মারমা। ম্যাচ জয়ে উচ্ছ্বসিত হলেও পুরো টুর্নামেন্টে এই পারফরমেন্সের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চান বাংলাদেশ দলের কোচ।

বিজয়ের ঠিক পরের দিনেই এ যেন আরেকটা বিজয়। ধুকতে থাকা ফুটবলে, নতুন দিনের গল্প। যে গল্পের চিত্রনাট্য কিংবা কুশীলব, সবই বাংলার কিশোরীরা।

দক্ষিণ এশিয়ার পিছিয়ে পরা নারী ফুটবলকে এগিয়ে নিতে বয়স ভিত্তিক পর্যায়ে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হয় সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের। যেখানে লাল সবুজের বাংলাদেশের মুখোমুখি হিমালয় কন্যারা।

মেয়েদের র‌্যাঙ্কিংয়ে নেপাল বাংলাদেশের চেয়ে ৯ ধাপ এগিয়ে থাকলেও ফুটবল যে কখনও র‌্যাঙ্কিং মেনে চলে না। বিশেষ করে ম্যাচের প্রথম মিনিট থেকেই নেপালি ডিফেন্স খাবি খেয়েছে বাংলাদেশের আক্রমণের কাছে। সেই হতাশা থেকেই হয়তো এগারো মিনিটে মনিকার শটে নিজেদের জালেই বল জড়ান ডিফেন্ডার ম্যান মায়ার।

সেই যে গোলের সূচনা, এরপর সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে স্কোর বেড়েছে ছোটন শীষ্যদের। ১৪ মিনিটে আনুচিং মারমা ও ৩২ মিনিটে তহুরার পর প্রথমার্ধেই বাংলাদেশের হয়ে গোলের হালি পূর্ণ করেন আনুচিং।

দ্বিতীয়ার্ধে আঁখি-নীলাদের খেলায় কিছুটা হলেও গতি কমে। তবে থেমে থাকেনি গোল ক্ষুধা। বিশেষ করে এক তহুরার দুর্দান্ত সব ভলির কাছেই হার মেনেছে নেপাল। ৫৯ মিনিটে আনুচিং শর্টে পাওয়া ফিরতি বলে গোলের পর ৭২ মিনিটে নিজের হ্যাটট্রিক পূর্ণ করে ময়মনসিংহের এই কিশোরী।

তবে বড় জয় পেলেও তৃপ্তির ঢেকুর গিলছে না বাংলাদেশ দল। এ ম্যাচের ভুল গুলি থেকে শিক্ষা নিয়ে মাঠে নামতে চান দ্বিতীয় ম্যাচে।

কোচ গোলাম রব্বানি ছোটন বলেন, ‘প্রথম ম্যাচ সবার জন্য ডিফিকাল্ট হয়। আমাদের সংশয় ছিলো, যেহেতু আমরা প্রাকটিস ম্যাচ খেলিনি। আমরা নিজেরা নিজেরা প্র্যাকটিস করেছি। কিন্তু সেসব পেছনে ফেলে তারা সম্পূর্ণ নিজেদের স্টাইলে খেলার চেষ্টা করেছে।’

ফরোয়ার্ড তহুরা খাতুন বলেন, ‘তারাও ভালো খেলেছে, আমরাও ভালো খেলেছি। আমরাও সর্বোচ্চটা দিয়ে খেলেছি, ওরাও সর্বোচ্চ দিয়েছে। আমাদের লক্ষ্য ছিলো ভালো খেলা দিয়ে জয় উপহার দেয়া। আমাদের লক্ষ্য চ্যাম্পিয়ন হওয়া।’

নেপাল অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল দল-এর কোচ গঙ্গা গুরঙ্গ বলেন, ‘দেখুন যোগ্য দল হিসেবেই বাংলাদেশ আজকে ম্যাচে জিতেছে। তারা শারীরিক ও টেকনিক্যাল দুই দিক থেকেই আমাদের চেয়ে এগিয়ে ছিলো। আশা করছি পরের ম্যাচে মেয়েরা আজকের চেয়ে ভালো ফুটবল খেলবে।

কাল মঙ্গলবার নিজেদের ২য় ম্যাচে ভুটানের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশের কিশোরীরা। আর নেপালের প্রতিপক্ষ ভারত।

সুত্র: সময় টিভি

ফেসবুক মন্তব্য
xxx