খেলায় উন্নতির পাশাপাশি ক্রিকেট কূটনীতিতেও এগিয়েছে বাংলাদেশ : সুজন

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: মাঠের খেলায় উন্নতির পাশাপাশি মাঠের বাইরে ক্রিকেট কূটনীতিতেও এগিয়েছে বাংলাদেশ। এর প্রতিফলন হয়েছে সবশেষ ঘোষিত আইসিসির ভবিষ্যৎ ক্রিকেট সূচিতে।

এমনটাই মনে করেন বিসিবির গেম ডেভেলপমেন্ট চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন। নতুন সূচিতে বেশি ম্যাচ পাওয়ায়, বিদেশের মাটিতে বাজে পারফরম্যান্সের দুর্নাম ঘোচাতে কাজে দেবে এমনটা আশা করেন তিনি।

এদিকে বিপিএলে পারফর্ম করা ক্রিকেটারদের নিয়ে পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন সুজন।

লাল-সবুজের ক্রিকেটে বিজয়ের গল্পটা এখন নিত্যদিনের। এ গল্পের পরতে পরতে আছে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের হাতছানি। মাঠের খেলায় এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ। যেকোনো দলকে হারাতে পারে টিম টাইগার্স। এর পেছনে আছে ক্রিকেটারদের অবদান। আছে ক্রিকেট কূটনীতিতে লাল-সবুজের এগিয়ে যাওয়া।

বিসিবির গেম ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘প্রতিটি মিটিংয়ে আমরা আমাদের খেলা বাড়ানোর কথা বলেছি। না হলে আমাদের ক্রিকেটের উন্নতি হচ্ছে না। এটা তো অবশ্যই, সাংগঠনিক দক্ষতা ছাড়া তো হয়না।

এফটিপির একটা ব্যাপার থাকে যে, কাকে কতটা ম্যাচ দিবে কিন্তু আমার মনে হয় সাংগঠনিক দক্ষতা তো অবশ্যই ছিলো যারা আমাদের জন্য আইসিসিতে ফাইট করতে যায়।

অবশ্য ক্রিকেটেও স্বপ্নের পথটা দীর্ঘ। সেই পথেও আছে পাওয়া না পাওয়ার হিসাব। এইতো কয়েকদিন আগেও দক্ষিণ আফ্রিকায় ব্যর্থ হয়েছে টাইগাররা। বিদেশের মাটিতে এখনো জাত চেনাতে পারছেনা বাংলাদেশ। যা লাল সবুজ দলের অন্যতম চ্যালেঞ্জ। আইসিসির নতুন সূচি এবার আশাবাদী করছে বিসিবিকে।

খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘আমাদের এটা ভুল প্রমাণ করতে হবে যে, দেশের বাইরে আমরা ভালো খেলতে পারিনা। এবার যখন দেশের বাইরে অনেক বেশি ক্রিকেট খেলবো তখন আমার মনে হয় এদিকটাতে আমরা উন্নতি করতে পারবো।

বিপিএল সাঙ্গ হয়েছে। মিলন মেলা ভেঙ্গেছে দেশি-বিদেশি ক্রিকেটারদের। এখন সময় পরিকল্পনার। পারফর্ম করা ক্রিকেটারদের নিয়ে ভাবছে বোর্ড।

খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘অনেক ছেলেই ভালো করেছে। তাদর ট্যালেন্ট আছে। ফাস্ট বোলার আবু জায়েদ রাহির কথা বলতেই হবে। ভালো বল করেছে স্থানীয়দের মধ্যে। সবাই প্রথম লিস্টে আছে।

জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া ক্রিকেটারদের ফিরে আসার সুযোগ হবে এইচপি। এমনটাই জানিয়েছেন খালেদ মাহমুদ সুজন।

সুত্র: সময় টিভি

ফেসবুক মন্তব্য
xxx