নিউজটি পড়া হয়েছে 32

আইসিসিবিতে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট এক্সপোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তুলে ধরেন শিল্পীরা।

শাহ্ তাজুল ইসলাম রুমেলঃ প্রথমবারের মতো জাপানে বাংলাদেশি পণ্যের একক প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী বছরের জুলাই মাসে মিরাই ইন্টারন্যাশনাল ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের বিডি লি: উদ্যোগে এবং রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুারোর (ইপিবি) সহযোগিতায় টোকিওর মাকুহরি মেসে কনভেনশন কমপ্লেক্সে প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে।
তৈরি পোশাক, চামড়া, ডেনিম, পাট, আইটিসহ ২৮টি খাতের বিভিন্ন কম্পানি প্রদর্শনীতে তাদের উৎপাদিত পণ্য প্রদর্শন করবে। গত ৩ ডিসেম্বর রবিবার সন্ধ্যায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট এক্সপো (ইরঃরবী)-২০১৮-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান ড. এ কে আব্দুল মোমিন, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মো. রাজী হাসান,হিউম্যান রাইটস এন্ড পীস ফর বাংলাদেশ (ঐজচই) প্রেসিডেন্ট, জনস্বার্থে রীটকারী আইনজীবি এড. মনজিল মোরসেদ, বায়রার সভাপতি বেনজীর আহমেদ, প্রধানমন্ত্রী বিশেষ সহকারী সেলিমা খানম, কানাডা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বিশিষ্ট শিল্পপতি সরওয়ার হোসেন, ব্যবসায়িক সংগঠনের বিশিষ্ট নেতৃবৃন্দরা উপস্তিত ছিলেন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে অতিথিদের স্বাগত জানান মিরাই গ্র“পের চেয়ারম্যান আকিরা আইস্নন, এমডি দেওয়ান সুমিত, পরিচালক শাহ তাজুল ইসলাম রুমেল, পরিচালক এ কে এম মাহাবুবুর হক, সিলেট জেলা প্রেসক্লাব এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও দৈনিক আজকের সংবাদ পত্রিকার সিলেট ব্যুরো প্রধান তরুণ ব্যবসায়ী মঞ্জুর হোসেন খানসহ কম্পানির সদস্য বৃন্দরা।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, পাঁচ দিনব্যাপী প্রদর্শনীর প্রথম তিন দিন বাংলাদেশি পণ্যের একক মেলা অনুষ্ঠিত হয়। চতুর্থ দিন সেমিনার এবং পঞ্চম দিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিশেষ অবদান রাখার জন্য শীর্ষ ব্যবসায়ীদের বিজনেস আইকন অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হবে। বাংলাদেশি যেকোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে মেলায় অংশ নিতে পারে।
প্রদর্শনীর আয়োজকরা জানান, বিগত সময়ে আন্তর্জাতিক এক্সপোতে অংশগ্রহণ করলেও বিদেশি ব্র্যান্ডের ভিড়ে বাংলাদেশি পণ্য বিদেশি ক্রেতা ও বিনিয়োগকারীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদা তৈরিতে পিছিয়ে পড়ে। ইরঃরবী অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিযোগিতা ছাড়া বিশ্ব বাণিজ্য মহলের সম্পূর্ণ মনোযোগ লাভ করার সুযোগ পাবে।

ফেসবুক মন্তব্য
Share Button