নিউজটি পড়া হয়েছে 191

আজ ১২ই রবিউল আওয়াল, পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম :::: আজ ১২ই রবিউল আওয়াল, ঈদে মিলাদুন্নবী। ৫৭০ খৃষ্টাব্দের এইদিনে মরুর বুকে জন্ম নেন ইসলাম ধর্মের শেষ নবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। শুধু মুসলমানদের জন্য নয় সারা পৃথিবীর জন্য শান্তির বার্তাবহক হিসেবে আবির্ভাব হয় এই মহামানবের। ৬৩ বছর পর এই দিনেই মৃত্যুবরণ করেন তিনি। তাই সারা বিশ্বের মুসলিম উম্মাহের কাছে এই দিনের গুরুত্ব অপরিসীম।

আজ থেকে প্রায় ১৪০০বছর আগে, পৃথিবী যখন অন্ধকারে নিমজ্জিত, মানুষ যখন দিশেহারা, ঠিক তখনই সারা বিশ্বের আলোর দিশারী হয়ে আগমন এক মহামানবের। মরুর দেশে জন্ম হয় হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের। ৪০ বছরে নবুয়ত পাওয়ার পর দীর্ঘ ২৩ বছরে দূর করলেন অন্ধকার, অস্থির পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠা করলেন সাম্য, প্রতিষ্ঠা করলেন শান্তির ধর্ম ইসলাম।

নামাজ, রোজা, ও কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে ঈদ এ মিলাদুন্নবী পালন করার কথা বললেন ইসলামি চিন্তাবিদরা।

জামিয়া কাছিমিয়া দারুল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা ফারুক হোসাইন বলেন, ‘আল্লাহ তায়ালা বলেন, যদি তোমরা আমাকে ভালবাসো, তবে আমার নবীকে অনুসরণ করা। আমাদের উচিত রোজা রাখা, কোরআন তেলাওয়াত করা, রসুলের আদর্শে গুনান্বিত হলেই আমাদের ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করা হবে।’

ইসলামি চিন্তাবিদরা মনে করেন, মহানবীর আদর্শ হৃদয়ে ধারণ করে চলতে হবে সারা জীবন তাহলেই মিলবে শান্তি, মিলবে মুক্তি।

সরকারি মাদরাসা ই আলিয়ার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দিন আহমাদ বলেন, ‘মানুষকে ভালোবাসা, মানুষের মঙ্গল কামনা করা, মানুষের সেবা করা এবং জাতি ধর্ম নির্বিশেষে তাদের সেবা করা। রসুল (সা.) এর যে সার্বিক জীবন সেখান থেকে আমাদের শিক্ষা নিলেই আমরা শান্তিতে বাস করতে পারবো।’

দীর্ঘ ২৩ বছর শান্তির বার্তা প্রচার করে ৬৩ বছর বয়সে ইহলোক ত্যাগ করেন এই মহাপুরুষ। তার অনুসারীদের জন্য রেখে যান আল্লাহ তা’য়ালার বাণী কোরআন এবং তার আদর্শ সুন্নাহ।

সুত্রঃ সময় টিভি 

ফেসবুক মন্তব্য
xxx