নিউজটি পড়া হয়েছে 183

পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মূল নির্মাণ কাজ শুরু : নতুন যুগে প্রবেশ করল বাংলাদেশ

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: শুরু হলো পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মূল নির্মাণ কাজ। এর মধ্য দিয়ে পরমাণু বিশ্বে প্রবেশের পথে আরো এক ধাপ এগুলো বাংলাদেশ। আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ হাতে কংক্রিটের ঢালাই দিয়ে পাবনায় রূপপুরে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন। পরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব ধরনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা করেই পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। তাই এ নিয়ে প্রশ্ন তোলা অবান্তর। এই কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিতে দক্ষ জনগোষ্ঠী গড়ে তোলা হবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

টেকসই বিদ্যুৎ প্রকল্পের বহুল প্রত্যাশিত প্রকল্প রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। ১ হাজার ৬২ একর জমির উপর নির্মিত দেশের প্রথম এই পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রর ২ ইউনিট থেকে ২০২৪ সাল নাগাদ জাতীয় গ্রিডে ২৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হবে। পারমানবিক চুল্লি স্থাপনের জন্য নিজ হাতে কংক্রিটের ঢালাই দিয়ে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর মাধ্যমে বাংলাদেশ বৈশ্বিকভাবে ৩২ তম সদস্য হিসেবে নিউক্লিয়ার ক্লাবে প্রবেশ করতে যাচ্ছে। সেই বহুল প্রত্যাশিত রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মূল নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন স্বাধীনতার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথম পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নেন। কিন্তু ৭৫ এর পর তা আর এগোয়নি।

তিনি বলেন, ‘জাতির পিতাকে হত্যা করে ষড়যন্ত্রের মধ্যে দিয়ে অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতায় এসেছে তারা কিন্তু পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের কোনো উদ্যোগই নেয়নি। ৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেই পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র কিভাবে স্থাপন করা যায় তার ব্যবস্থা আমরা নিয়েছিলাম।

প্রধানমন্ত্রী বলেন ঘনবসতিপূর্ণ এই দেশের কথা মাথায় রেখে এবং আইএইএ’র সব শর্ত মেনেই এই বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সব ধরণের নিরাপত্তার ব্যবস্থা কিন্তু আমরা করেছি। অনেকেই অনেক ধরনের প্রশ্ন করছেন। এই প্রশ্নগুলো যে অবান্তর, এটা তাদের একটু চিন্তা করা উচিত।’

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুরে ২০১৩ সালে ২ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন। আর্থিক বিবেচনায় দেশের সবচেয়ে বড় এই প্রকল্পটিতে ব্যয় হবে ১লাখ ১ হাজার ২’শ কোটি টাকা। রাশিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ব পারমানবিক সংস্থা রোসাটোম প্রকল্পটিতে কারিগরী সহায়তা ও নির্মাণ সহায়তা দিচ্ছে।

সময় টিভি

ফেসবুক মন্তব্য
xxx