সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলা : জাতিসংঘের তদন্ত রিপোর্ট বাতিলের দাবি করেছে রাশিয়া।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম :::: রাশিয়া বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের কাছে সিরিয়ার সারিন নামে বিষাক্ত রাসায়নিক গ্যাস নিক্ষেপের প্রতিবেদন বাতিল এবং নতুন করে তদন্তের দাবি জানিয়েছে। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের ওই রিপোর্টে সারিন গ্যাস হামলার জন্য সিরিয়া সরকারকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের পাঠানো সিদ্ধান্তের খসড়া প্রতিবেদনে ছয় বছরের সিরীয় যুদ্ধে রাসায়নিক হামলার পেছনে কারা রয়েছে তা সনাক্ত করার জন্য জাতিসংঘ নেতৃত্বাধীন প্যানেলের সময় আরো ছয় মাস বাড়াতে বলা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র বৃহস্পতিবার বলেছে, একটি পাল্ট খসড়া সিদ্ধান্ত এগিয়ে নেয়ার পদক্ষেপ নিতে জয়েন্ট ইনভেস্টিগেটিভ মেকানিজম (জেআইএম) হিসেবে পরিচিত প্যানেলের মেয়াদ দুই বছর বাড়াবে।

রাশিয়া জেআইএম’র প্রতিবেদনের তীব্র সমালোচনা করেছে। এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রায় সাত মাস আগে খান শেইকুনে বিরোধীদের নিয়ন্ত্রিত ইদলিব গ্রামে সিরিয়ার বিমান বাহিনী সারিন গ্যাস হামলা চালিয়েছে। ৪ এপ্রিলের ওই হামলায় শিশুসহ ৮৩ জনের বেশী লোকের মৃত্যু হয়েছে, এতে বিশ্বব্যাপী ক্ষোভের সৃষ্টি হয় এবং সিরিয়ার বিমান ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ জানানো হয়।

রাশিয়া জেআইএম প্যানেলের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেছে, প্যানেল বিশেষজ্ঞরা খান শেইকুনে পরিদর্শনে যায়নি। রাশিয়ার খসড়া প্রস্তাবে যতক্ষণ পূর্ণমাত্রায় এবং ঘটনাস্থলে গিয়ে উচ্চমানের তদন্ত সম্পন্ন না হয় ততদিন পর্যন্ত জেআইএমকে তাদের ফাইন্ডিং সংরক্ষণ করার অনুরোধ জানিয়েছে।

জেআইএম প্যানেলের মেয়াদ ১৬ নভেম্বর শেষ হবে তবে এর ভাগ্য নির্ভর করে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী সিরিয়ার মিত্র রাশিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের ওপর। এ ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে রয়েছে ফ্রান্স ও ব্রিটেন।

তদন্ত প্যানেলের কাজকে তুচ্ছ করে দেখার জন্য মস্কোর প্রতি নিন্দা জানিয়ে হোয়াইট হাউস কড়া বিবৃতি দিয়েছে। মস্কো বলেছে, জাতিসংঘ রিপোর্ট অপেশাদারী। জয়েন্ট-ইউএন অর্গানাইজেশন ফর দ্য প্রোহিবিশন অব ক্যামিক্যাল ওয়েপন্ডস (ওপিসিডব্লিউ) প্যানেল খান শেইকুনে রাসায়নিক হামলার জন্য সিরিয়ার বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপের আহ্বান জানিয়েছে। জেআইএম রিপোর্টে বলেছে, সিরিয়ার সরকারি বাহিনী ২০১৪ ও ২০১৫ সালে তিনটি গ্রামে রাসায়নিক হামলার জন্য দায়ী। বাসস

Facebook Comments