আধারের আলো, আব্দুল বাছিত রুম্মান।

বর্তমান উত্তপ্ত ছাত্র রাজনীতিতে সিলেটের ছাত্র নেতারা বিভিন্ন ঘটনায় নানা ভাবে সমালোচিত হয়েছেন, বিতর্কিত হয়েছেন, বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িয়ে পরে মামলা’র আসামী হয়েছেন, ক্ষমতার দাপট দেখাতে গিয়ে ছাত্রলীগের আদর্শকে বিচ্যুতি দিয়েছেন। কিন্তু একজন মানুষ আধারে আলোর মত ছাত্রনেতা হিসেবে নিজেকে তার মেধা ও শ্রম দিয়ে সবার থেকে ব্যতিক্রম রেখেছেন। যিনি কিনা ক্ষমতার খুব ধারে কাছে থেকেও কখনই ছাত্রলীগের আদর্শ থেকে একচুলও সরেননি। যার বিরুদ্ধে নেই কোনো অভিযোগ। সর্বদা চেষ্টা করে যাচ্ছেন বিতর্কের উর্ধ্বে থেকে ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করার। যার মধ্যে নেই কোনো অহংকার, অহমিকা, ক্ষমতা দেখানোর দাপট। বরং কর্মীদেরকে কর্মী না ভেবে নিজের ভাইয়ের মতো ভালবাসেন। সেই মানুষটি হলেন হাজার হাজার ছাত্রজনতার প্রাণের স্পন্দন, পরিচ্ছন্ন ছাত্র রাজনীতির উদাহরণ, প্রিয় নেতা সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সংগ্রামী সভাপতি আব্দুল বাছিত রুম্মান ভাই।

পারিবারিক ভাবেই উনার ছাত্র রাজনীতির সূচনা। বড় ভাই আবু আম্বিয়া চারদলীয় জোট সরকারের আমলে আওয়ামী লীগের যখন দুঃসময় চলছিল, তখন রাজপথে থেকে ছাত্রনেতা হিসেবে এমসি কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন। সেই সুবাধে ছোটবেলা থেকেই নিজেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন কর্মী হিসেবে গড়ে তুলার স্বপ্ন বুনেন এবং স্কুল জীবনেই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন।

বঙ্গবন্ধু যার আদর্শ, চেতনা তাকে কি আর থেমে থাকলে হবে! তিনি থেমে থাকেননিও। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক হিসেবে সর্বদা রাজপথে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। যার ফলস্বরুপ দায়িত্ব পালন করেছেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের বিভাগীয় উপ সম্পাদকের। সর্বশেষ ২০১৫ সালে  সম্মেলনের মাধ্যমে নির্বাচিত হন সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি। দায়িত্ব পাওয়ার সাথে সাথেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে সামনে রেখে, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ভিশন-২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে ছাত্রসমাজকে এক্যবদ্ধভাবে সুসংগঠিত করার কাজে নেমে পড়েন। এবং আজ সিলেট মহানগর ছাত্রলীগ সারা বাংলাদেশের ছাত্রলীগের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ইউনিট হিসেবে তার প্রমাণ দিয়েছে।

পরিশেষে এইটুকুই বলব, রুম্মান ভাইয়ের মত যদি সত্যিকারভাবে বঙ্গবন্ধু’র আদর্শ লালনকারী, সৎ ছাত্রনেতাদের হাতে, জাতির জনকের নিজ হাতে গড়া, শিক্ষা শান্তি প্রগতির পতাকাবাহী সংগঠনের প্রতিটি ইউনিটের দায়িত্ব দেওয়া যেত তাহলে ছাত্রলীগের সেই সোনালী সময় আবার ফিরে পেত।

 

লেখক:

জাহাঙ্গীর আলম।
বিএ ১ম বর্ষ, এমসি কলেজ, সিলেট।

২০ অক্টোবর ২০১৭

Facebook Comments