নিউজটি পড়া হয়েছে 26

সিরিজে টিকে থাকার ম্যাচে আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে প্রথম ওয়ানডে হেরে ইতোমধ্যে তিন ম্যাচ সিরিজে পিছিয়ে পড়েছে সফরকারী বাংলাদেশ। সিরিজে টিকে থাকতে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জয় ছাড়া বিকল্প কোন পথ খোলা নেই টাইগারদের সামনে। এমন লক্ষ্য লক্ষ্য নিয়েই আজ দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলতে নামছে মাশরাফির দল। পক্ষান্তরে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করার লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। দুই দলের সামনে বিপরীত সমীকরণ নিয়ে আজ পার্লের বোল্যান্ড পার্কে বাংলাদেশ সময় বেলা ২টায় শুরু হবে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে।

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হবার পর ওয়ানডেতে ভালো করাই প্রধান লক্ষ্য ছিলো বাংলাদেশের। ৫০ ওভারের ফরম্যাট নিয়ে বাংলাদেশের আগ্রহ অনেক বেশিই। কারন গত বিশ্বকাপ থেকে ওয়ানডে ফরম্যাটে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলে চলেছে মাশরাফির নেতৃত্বাধীন দলটি। তাই ঐ অভিজ্ঞতা থেকে আবারো জ্বলে উঠার মিশন শুরু করেছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু কিম্বার্লিতে সিরিজের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্দান্ত পারফরমেন্সের মুখে অসহায় আত্মসমর্পন করে বাংলাদেশ। টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের অসাধারণ সেঞ্চুরির সুবাদে ৭ উইকেটে ২৭৮ রান করে বাংলাদেশ। পুঁজি ছোট্ট হলে এই স্কোর নিয়েই লড়াই করার স্বপ্ন দেখেছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফির বিন মর্তুজা।

প্রথম ওয়ানডে শেষে মাশরাফি বলেন, ‘এটি ২৮০ রানের উইকেট নয়। তবে বোলাররা ভাল পারফরমেন্স করলে এই টার্গেটেও ম্যাচ জয় করা সম্ভব হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্য বাংলাদেশের। দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ওপেনার কুইন্ট ডি কক ও হাশিম আমলার অতি দানবীয় ব্যাটিং-এ বিশ্বরেকর্ড গড়ে ১০ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেয়া ২৭৯ রানের টার্গেট নিজেরাই টপকে যান ডি কক ও আমলা। ব্যাটিং অর্ডারে সতীর্থদের কোন সহায়তাই নেননি ডি কক ও আমলা।

অবশ্য বোলারদের ব্যর্থতার সাথে ফিল্ডারদের ক্যাচ ড্র’পের মিশেল দক্ষিণ আফ্রিকা রেকর্ড গড়ে জয়ের ঢেঁকুর গিলে। তাই ম্যাচ শেষে বোলারদের নিয়ে হতাশা ঝড়েছিলো ম্যাশের কন্ঠে, ‘যদি আমরা শুরুতে উইকেট নিতে পারতাম, তবে প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ভালো কিছু করা সম্ভব ছিলো। আমাদের বোলাররা ভালো করতে পারেননি। তবে পিছিয়ে পড়লেও ঘুড়ে দাঁড়ানোর মত অসম্ভব চ্যালেঞ্জ নিতে সদাই প্রস্তুত থাকে মাশরাফির দল। যেমনটা ২০১৫ সালে দেশের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথমটি ৮ উইকেটে হেরে সিরিজে পিছিয়ে পড়েছিলো মাশরাফি-মুশফিকুররা।

সেখান থেকে দ্বিতীয় ও তৃতীয় ওয়ানডে যথাক্রমে ৭ উইকেটে এবং ৯ উইকেটে জিতে সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতেছিলো বাংলাদেশ। তাই অতীত থেকে সাহস যোগানার কাজটা সেড়ে নিতে পারে টাইগাররা। এমনটা হলে বাংলাদেশের ক্রিকেট যোগ হবে আরও একটি অর্জন।

দক্ষিণ আফ্রিকা সম্ভাব্য দল: ফাফ ডু প্লেসিস (অধিনায়ক), হাশিম আমলা, টেম্বা বাভুমা, ফারহান বেহার্দিয়েন, কুইনটন ডি কক (উইকেটরক্ষক), এবি ডি ভিলিয়ার্স, জেপি ডুমিনি, ইমরান তাহির, ডেভিড মিলার, ওয়েইন পারনেল, ডেন পিটারসন, আনডিলে ফেলুকুয়ায়ো, ডুয়াইন প্রেটোরিয়াস, কাগিসো রাবাদা।

বাংলাদেশ সম্ভাব্য দল : মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), ইমরুল কায়েস, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), মাহমুদুল্লাহ, মেহদি হাসান, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মুস্তাফিজুর রহমান, নাসির হোসেন, রুবেল হোসেন, সাব্বির রহমান, সাকিব আলহাসান, সৌম্য সরকার, তামিম ইকবাল, তাসকিন আহমেদ।

বাসস

ফেসবুক মন্তব্য
Share Button
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •