ছাতকের গোবিন্দগঞ্জে হয়ে গেল গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা

সিলনিউজ২৪.কমঃ কোন মেস্তরী নাও বানাইলো কেমন দেখা যায়, ঝিলমিল ঝিলমিল করে রে ময়ূর পঙ্খী নায়’ বাউল সম্রাট আব্দুল করিমের গানের সুরে সুরে মঙ্গলবার ১০ অক্টোবর বিকালে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ পুরাতন বাজার এলাকায় এমনই ঝিলমিল করছিল একাধিক নৌকা। নৌকায় মাঝিদের কন্ঠে ছড়িয়ে পড়েছিলো গ্রামবাংলার চিরন্তন আঞ্চলিক সারি গান। ঢাক-ঢোল আর করতালের তালে তালে সুরের মুর্চনায় হারিয়ে গিয়েছিল হাজার হাজারো উৎসুক দর্শকও। সব মিলিয়ে মঙ্গলবার বিকেলে বটের খাল এলাকায় বিরাজ করছিল অন্যরকম দৃশ্য। পুরুষের পাশা পাশি নারী দর্শক ছিল লক্ষনীয় । বটের খালের দুই পারে কানায় কানায় ভরে উঠেছে উৎসুক দর্শক জনতা পদভারে । এ নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা নিয়ে গত এক সপ্তাহ থেকে উপজেলার সরবত্র ছিল উৎসবের আমেজ। এ দিনটির প্রহর গুনছিলেন এলাকার সর্বস্তরের মানুষ। মানুষদের বিনোদনের এ মৌসুমে নৌকা বাইচই ছিল তাদের আনন্দের অন্যতম উৎসব। আগে প্র্রতিবছরই ছাতক নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত হতো। তাই এবারের নৌকা বাইচের দিনক্ষণ ঘোষিত হওয়ার পর থেকেই এলাকার লোকজন তাদের আত্মীয় স্বজনকে প্রতিযোগিতা উপভোগের আমন্ত্রন জানান। নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতাকে কেন্দ্র করে এ এলাকা পরিণত হয় আত্মীয় স্বজনদের মিলন মেলায়। গোবিন্দগঞ্জ বটেরখাল নদীতে মঙ্গলবার নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা শেষে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও মাষ্টার পংকজ দত্ত ও আতাউর রহমান এমরানে যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলার নিরবাহী অফিসার মো. নাসির উল্লাহ খান, জেলা পরিষদের মহিলা প্রতিনিধি শামছুর নাহার চৌধুরী চিনু, উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান খান, লামাকাজি ইউপির চেয়ারম্যান কবির হোসেন ধলা মিয়া, ইছাকলস ইউপি চেয়ারম্যান কুটি মিয়া, গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান, ব্যবসায়ী আশরাফুর রহমান চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সুন্দর আলী, ফজর উদ্দিন, আলহাজ্ব নিজাম উদ্দিন, উপাধ্যক্ষ মহি উদ্দিন, ক্রিড়া সংস্থাার সেক্রেটারী লাল মিয়া। এসময় এসআই সোহেল রানা, এসআই কামাল উদ্দিন, এএসআই মহি উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা কবির উদ্দিন লালা, আলা উদ্দিন, লাল মিয়া, নুর আলম মেম্বার, শুকুর আলী মেম্বার, লাল মিয়া মেম্বার, দিদার আলম মেম্বার, এনাম আহমদ মেম্বার, মুহিবুর রহমান মেম্বার, আব্দুল আলিম মেম্বার, জইন উদ্দিন আহার, মাষ্টার আব্দুল বাছিত, মাষ্টার মাহবুবুর রশিদ, জয়নাল আবেদীন, শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আফতাব উদ্দিন, হাজী জালাল উদ্দিন, কামাল উদ্দিন, আশিকুর রহমান,

শামছুদ্দীন, খলিলুর রহমান, আশরাফুর রহমান এনাম, আবুল কালাম, আলমগীর কবির, মতিন মিয়া, আবু বক্কর রাজা, লোকমান আহমদ মনি , সদরুল আমিন সোহান, আলকাব আলী, অলি আহমদ ছায়াদ, উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিংকু আহমদ, অর্থ সম্পাদক আরজ আলী, দপ্তর সম্পাদক ফয়জুল ইসলাম ফজল, যুবলীগ নেতা শাহ আরজ মিয়া, লোকমান হোসেন, খালেদ আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা কাওছার আল মামুন, জাহিদ হাসান ডালিম, মাস্টার রেজ্জাদ আহমদ, সায়মন আহমদ, লোকমান আহমদ প্রমুখ। সামাজিক বিনোদন ও বাংলা সংস্কৃতির হারিয়ে যাওয়া ঐতিবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা বটের খালের দুই পাড়ে হাজার হাজার মানুষের সমাগম ঘটে । মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত নৌকা বাইচ সিলেট বিভাগের বিভিন্ন উপজেলা থেকে আগত লোকজন প্রায় শতাধিক ছোট-ছোট নৌকা সহযোগে উপভোগ করেন। নদীর দুই পাড়ে এসব নৌকার বেষ্টনী দর্শনার্থীদের আলাদা আনন্দ যোগায়। এবারের নৌকা বাইচে মোট ৯ টি নৌকা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগীতায় প্রথম হয় কোম্পানীগঞ্জ পুটামারা, গোয়াইনঘাট উপজেলা দ্বিতীয় ও ৩য় স্থান অধিকার করে ছাতক উপজেলার রংপুর । প্রতিযোগিতায় ১ম পুরস্কার ছিলো ১টি ফ্রিজ, ২য় পুরস্কার ছিলো ১টি গরু , ৩য় পুরস্কার ছিলো একটি রঙ্গিন টিভি । নৌকা বাইচে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল ।

 

 

চান মিয়া, ছাতক থেকে-

Facebook Comments