নিউজটি পড়া হয়েছে 110

প্রথমবারের মতো কংক্রিটের সড়ক হচ্ছে সিলেটে

সিলনিউজ অনলাইন ডেক্সঃ বৃষ্টির পানিতেই সড়কের উপরিভাগের বিটুমিন উঠে লাল ইটের বড় বড় টুকরো বেরিয়ে আসে। এতে কোথাও কোথাও যানবাহন চলাচলই অসম্ভব হয়ে পড়ে। ফলে বছর বছর সড়ক মেরামত ব্যয় বেড়েই চলে।

সিলেট তামাবিল ল্যান্ডপোর্ট কানেকটিং ও বল্লাঘাট সংযোগ সড়ক এটি। পাহাড়ি এই সড়ক দিয়ে ভারত থেকে প্রচুর পরিমাণে পাথর ও কয়লা আমদানি করা হয়। এই সড়ক দিয়ে বিপুল সংখ্যক ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে প্রতি বছরই নষ্ট হচ্ছে সড়কের বিটুমিন। ফলে স্থায়ী সমাধান দিতে এই সড়ককে কংক্রিট দিয়ে বানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগ।  এর আগে খণ্ড খণ্ডভাবে অন্যান্য সড়কের বাজার অংশে কংক্রিট বসলেও এই প্রথমবারের মতো সম্পূর্ণভাবে একটি সড়ক এর আওতায় আসছে।

সূত্র জানায়, ঢাকা-সিলেট-তামাবিল-জাফলং মহাসড়ক একটি জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়ক। আঞ্চলিক যোগাযোগের দৃষ্টি কোণ থেকেও এটা গুরুত্বপূর্ণ। প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর সিলেটের জ্বালানি খাত, নির্মাণ সামগ্রী এবং পর্যটন খাতে অবদান রাখতে সড়কটি আরও উন্নত করা দরকার। তামাবিল দেশের অন্যতম স্থলবন্দর।

সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ( ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড  ডিসিপ্লিন সেকশন)  জাহিদা খানম বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বাজার অংশে কংক্রিটের ব্লক ব্যবহার করেছি। কারণ বাজার অংশে মানুষের আনাগোনা অধিক। সড়কের উপর অনেক সময় পানি জমে থাকে। তাই বিটুমিন (পিচ) নষ্ট হয়ে যায়। কংক্রিটের সড়কে আমরা ভালো সুফল পাচ্ছি। এই ধারাবাহিকতায় সিলেটের জৈন্তা থেকে জাফলং পর্যন্ত ১৬ দশমিক ০৯ কিলোমিটার সড়ক কংক্রিটের মাধ্যমে নির্মাণ করবো। সড়কটিতে যানবাহন চাপও অনেক।  পাথরবাহী বড় বড় ট্রাক এই সড়কে চলাচল করে। তাই পুরো সড়কটিই কংক্রিটের মাধ্যমে নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছি। আমরা আশা করছি ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের বাজার অংশেও কংক্রিটের ব্লক।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx