রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে অং সান সুচির সামনে এখন শেষ সুযোগ : জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুচির সামনে এখন শেষ সুযোগ বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। রাখাইনে সেনা অভিযান এখনই বন্ধ না হলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ রূপ নেবে বলেও সতর্ক করেন তিনি। রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। এদিকে, রাখাইনে সামরিক অভিযানের নিন্দা জানিয়ে ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ফ্রান্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিক্ষোভ হয়েছে।

রাখাইনে রোহিঙ্গা অধ্যুষিত গ্রামের ঘর-বাড়িতে আগুন দেয়ার নতুন ছবি প্রকাশিত হয়েছে। সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা মোবাইলে এই ভিডিও ধারন করে বলে জানায় রয়টার্স।

রাখাইনে চলমান সামরিক বাহিনীর রক্তাক্ত অভিযানের প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার ইন্দোনেশিয়ায় মিয়ানমার সরকার বিরোধী বিক্ষোভে যোগ দেয় হাজার হাজার মানুষ। তারা রাখাইনে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও গণহত্যা বন্ধে ব্যবস্থা নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান।

বিক্ষোভ হয়েছে ফ্রান্সের প্যারিসেও। রোববারের এই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে সংহতি জানিয়ে মিয়ানমারকে অবিলম্বে রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানান ফ্রান্সে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রতিনিধি। তিনি বলেন, মিয়ানমার সরকার বলছে ত্রাণকর্মীরা নাকি সন্ত্রাসীদের সহায়তা করছে, তারা রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে এবং দাতব্য সংস্থাগুলোর বিরুদ্ধে হাস্যকর সব অভিযোগ তুলছে। অং সাং সু চির উচিত রোহিঙ্গা ইস্যুতে দ্রুত নীতি পরিবর্তন করা।

এ অবস্থায় মিয়ানমারের প্রতি কঠোর বার্তা দিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধে অং সান সু চি এই মুহূর্তে কোনো ব্যবস্থা না নিলে, পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ রূপ নেবে বলে বিবিসিকে এক সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘আমরা জানি অং সান সু চি একটি কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি। মিয়ানমারে যে কোনো সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে সেনাবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ আধিপত্য থাকে। কিন্তু রাখাইন পরিস্থিতির দিন দিন অবনতি হচ্ছে। সামনে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে সুচির অবস্থান পাল্টানোর এটাই শেষ সুযোগ। অন্যথায় এই সঙ্কটের সমাধান সম্ভব না।’

রাখাইনে সামরিক অভিযান বন্ধে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক নানা চাপের মধ্যে রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতীয় ঐক্যের ডাক দিলেন দেশটির সেনা প্রধান মিন অং হেইং। মিয়ানমারে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর শেকড় কোনভাবেই মিয়ানমারে নয় বলে ফেইসবুকে এক বার্তায় উল্লেখ করেন তিনি।

আগামী মঙ্গলবার রাখাইন পরিস্থিতি নিয়ে অং সান সুচির জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেয়ার আগ মুহূর্তে সেনা প্রধানের এমন বক্তব্য পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলেছে। ২০১৫ সালে মিয়ানমারে সু চি নেতৃত্বাধীন বেসামরিক সরকার দেশের শাসনভার গ্রহণ করলেও, সেনাবাহিনীর ওপর সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপাত দৃষ্টিতে দেশটিতে জান্তা সরকারের অবসান ঘটলেও, ক্ষমতার আধিপত্য নিয়ে সরকার ও সেনাবাহিনীর মধ্যে দ্বন্দ্ব এখনো কাটেনি।

এদিকে, বৌদ্ধ ধর্ম অহিংস ধর্ম বলে সমাজে যে জনশ্রুতি রয়েছে, রাখাইনে সাম্প্রতিক সংঘাতের প্রসঙ্গ টেনে প্রচলিত সেই ধারনা ভুল বলে আখ্যা দিয়েছেন কট্টর বৌদ্ধদের সমালোচক ও মিয়ানমারের রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড. মং জার্নি।

গত ২৫শে আগস্ট রাখাইনে রোহিঙ্গা নির্মূলের অভিযান শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত ৪ লাখের বেশি মানুষ সীমান্তে অতিক্রম করে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।

সূত্র: সময় টিভি

Facebook Comments