দালালদের দৌরাত্ম্যে অসহায় বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে চলাচল করা যাত্রীরা।

ইকবাল এইচকে খোকন, বেনাপোল থেকে ফিরেঃ দেশের প্রধান স্থলবন্দর বেনাপোলে কাস্টমস-ইমিগ্রেশন থেকে শুরু করে সর্বক্ষেত্রে দুর্নীতি অার দালালদের দৌরাত্ম্যে চরম ভোগান্তি এবং সীমাহীন যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ দু’বাংলার মধ্যে চলাচলকারী হাজার হাজার যাত্রী এবং অসুস্থ মানুষদের।

সরজমিনে দেখা গেছে টাকা ছাড়া কাস্টমস-ইমিগ্রেশনের কাজ শেষ করতে ঘন্টার পর ঘন্টা দীর্ঘলাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে যাত্রীসাধারণদের।

একই অবস্থা ইমিগ্রেশনেও। অহেতুক যাত্রী হয়রানী এখানে নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়। কারনে অকারনে যাত্রীদের ইমিগ্রেশনে আটকে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে তাদের মনোনীত দালালরা এগিয়ে এসে বিষয়টি সমাধানের অফার দেয় এবং সেজন্য মোটা অংকের টাকা দাবী করে। বিভিন্ন জরুরী কাজে ভারতমূখী এসকল যাত্রীরা বাধ্য হয়ে বড় অংকের টাকা দিয়ে ইমিগ্রেশনের পর্ব শেষ করেন। ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত ঘুষ দিতে হয় এখানে। তা না হলে বিভিন্নভাবে নাজেহাল করা হয় ভারতগামী এসকল যাত্রীদের।

একই অবস্থা কাস্টমসেও। সেখানে পুলিশ থেকে শুরু করে বিভিন্ন বাসের কর্মচারী এবং সাধারণ কুলিরা সরাসরি দালালীতে ব্যস্ত। সরাসরি তারা অফার দেয় লাইনে না দাঁড়িয়ে সরাসরি কাস্টমসে নিয়ে যাওয়ার। সেজন্য জনপ্রতি তারা ১৫০/২০০ টাকা দাবী করে।

এই প্রতিবেদকেও একই ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। ভারতে প্রবেশের জন্য অপেক্ষমাণ হাজার হাজার যাত্রী রোদ-ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে লাইনে দাঁড়িয়ে চরম ভোগান্তিতে থাকলেও ঘুষ দিয়ে অনায়াসে কাস্টমস শেষ করছেন অনেকেই। প্রতিবাদ করেও এর কোন প্রতিকার নেই। কারন যারা বিষয়গুলো দেখবে তারা নিজেরাই দুর্নীতিতে জড়িত।

ইমিগ্রেশনের এক পুলিশ কর্মকর্তা দাম্ভিকতা দেখিয়ে এ প্রতিবেদককে বলেন, সয়ং প্রধানমন্ত্রী এসেও নাকি তাদের কিছু করতে পারবেন না।

দেশের প্রধান স্থলবন্দর দিয়ে চলাচলকারী দুই বাংলার হাজার হাজার মানুষের কষ্ট এবং ভোগান্তি দিন দিন চরম আকার ধারণ করেছে। অভিযোগ আছে কিন্তু অভিযোগ শুনার কেউ নেই এখানে। কারন ঘুষ অার দুর্নীতিই এখানে নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে বেশ ক’জন যাত্রী জানান,- এখানে ঘুষ ছাড়া কোন কাজই হয়না। বিশেষ করে সাধারণ যাত্রীরা এর হয়রানীর শিকার। আর যারা প্রথমবার এই স্থলবন্দর ব্যবহার করছেন তাদের অবস্থা আরও করুন। হাজার হাজার মানুষের ভীড়ে কিছু বুঝে উঠার আগেই দালালদের ফাদেঁ পা দিতে হয় তাদের। দালালরা সুযোগবুঝে হাতিয়ে নিচ্ছে যাত্রী কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা।

বেনাপোল-পেট্রাপোল দিয়ে চলাচলকারী যাত্রীদের দাবী,- শুধু প্রতিকারের আশার বাণী শুনতে চান না তারা, এর বাস্তব সমাধান চান। বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবী জানান তারা। সেজন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রাণালয় এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি অাকর্ষন করেন বেনাপোল বন্দর ব্যবহার করা এসকল যাত্রীরা।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম/সম্পাদক/০৮সেপ্টেম্বর

 

Facebook Comments