নিউজটি পড়া হয়েছে 6

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার টেস্টের পরিসংখ্যান।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম :::: অস্ট্রেলিয়ার সাথে সর্বশেষ ২০০৬ সালে দ্বিপাক্ষিক টেস্ট সিরিজে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ। টাইগারদের টেস্ট স্ট্যাটাসের বয়স প্রাপ্তির ১৭ বছর হলেও এখন পর্যন্ত অজিদের বিপক্ষে মাত্র দুইটি টেস্ট সিরিজ খেলার সুযোগ হয়েছে। প্রথমটি ২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে, আর দ্বিতীয়টি বাংলাদেশের মাটিতে ২০০৬ সালে।

২০০৩ সালে অজিদের মাটিতে অনুষ্ঠিত ওই সিরিজে ২-০ ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। ডারউইনে অনুষ্ঠিত সিরিজের প্রথম টেস্টে শোচনীয় পরাজয় বরণ করতে হয়েছিল টাইগারদের। ইনিংস ও ১৩২ রানের ব্যবধানে জিতেছিল স্টিভ ওয়াহর অস্ট্রেলিয়া।

সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টেও ইনিংস ও ৯৮ রানের বড় ব্যবধানে একই পরিণতি বরণ করতে হয়েছিল খালেদ মাহমুদ সুজনের দলকে।

২০০৬ সালে বাংলাদেশের মাটিতে প্রথমবারের মতো টেস্ট সিরিজ খেলে অজিরা। ফতুল্লায় সিরিজের প্রথম ম্যাচে তাদেরকে হারানোর সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেনি বাংলাদেশ। ম্যাচটি এখনো পর্যন্ত এক আক্ষেপ হয়ে আছে বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য। শাহরিয়ার নাফীসের ১৩৮ রানের সুবাদে প্রথম ইনিংসে ৪২৭ রান করে হাবিবুল বাশারের দল। জবাবে প্রথম ইনিংসে ২৬৯ রানেই গুটিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। ১৫৮ রানে এগিয়ে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংসে ১৪৮ রানেই অল-আউট হয়ে যায়। জয়ের জন্য অজিদের সামনে টার্গেট দাঁড়ায় ৩০৭রানের। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে বাঁ-হাতি স্পিনার মোহাম্মদ রফিকের ঘূর্ণিজাদুতে ২৭৭ রানে সাত উইকেট হারিয়ে বসে অজিরা। কিন্তু রিকি পন্টিংয়ের ১১৮* রানের অধিনায়কোচিত ইনিংসের কাছে হার মানতে হয় টাইগার বোলারদের। তিন উইকেটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা। প্রথম ইনিংসে পাঁচ এবং দ্বিতীয় ইনিংসে চার উইকেট নেন রফিক।

চট্টগ্রামে দ্বিতীয় টেস্টে পারফর্মেন্সের ছিটেফোঁটাও দেখাতে পারেনি বাংলাদেশ। ইনিংস ও ৮০ রানের বড় জয় তুলে নিয়ে সিরিজে নিজেদের করে রাখে অস্ট্রেলিয়া।

সেইসব দিন এখন অতীত। ঘরের মাঠে এখন সত্যিকারের বাঘ হয়ে উঠেছে বাংলাদেশ। অজিরাও ঘরের মাঠের বাংলাদেশকে সমীহ করছে। অপেক্ষা এখন কেবল মাঠের লড়াইয়ের। টেস্টে ইংল্যান্ড বধের পর এবার অজি বধ দেখতে উন্মুখ টাইগার সমর্থকরা। বাসস

ফেসবুক মন্তব্য
Share Button