বন্যার্তদের সহযোগিতায় ছয়টি জেলায় সেনাবাহিনী মোতায়েন।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতি হচ্ছে। নদনদীগুলোর পানি বেড়ে বন্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এই অবস্থায় উত্তরের ছয়টি জেলায় স্থানীয় প্রশাসনের পাশাপাশি সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। বন্যার্তদের সহযোগিতায় কাজ করছেন সেনা সদস্যরা।

সেনাবাহিনী মোতায়েন করা ছয়টি জেলা হলো: ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, রংপুর, নীলফামারী, গাইবান্ধা ও সিরাজঞ্জ।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) সোমবার বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, সেমবার সকালে স্থানীয় প্রশাসনের অনুরোধে গাইবান্ধা সদরের বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় সেখানকার বাঁধ পুনঃনির্মাণে সেনাবাহিনীর তিন প্লাটুন সদস্য পাঁচটি স্পিডবোট ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় উদ্ধার সামগ্রীসহ মোতায়েন করা হয়েছে।

এছাড়াও ১৯ পদাতিক ডিভিশন হতে একটি বিশেষ পর্যবেক্ষক দল আজ সিরাজগঞ্জের বন্যা দুর্গত এলাকা কাজিরপুর উপজেলার বাহুকায় যায় এবং দুর্গত এলাকা পর্যবেক্ষণ করে।

আইএসপিআর জানায়, পরিস্থিতি বিবেচনা করে বেসামরিক প্রশাসনের অনুরোধে যেকোনো সময় সেনাবাহিনীর আরও সদস্য বন্যা দুর্গত এলাকায় দ্রুততম সময়ে অংশগ্রহণের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছে।

এর আগে উত্তরাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলা বন্যা কবলিত হয়ে তলিয়ে গেলে সরকারের নির্দেশে জনস্বার্থে প্রাথমিকভাবে গত ১২ আগস্ট সন্ধ্যায় ৬৬ পদাতিক ডিভিশন হতে এক প্লাটুন সেনাসদস্য ঠাকুরগাঁও শহরে মোতায়েন করা হয়। এই সেনাসদস্যরা রাতভর উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

পরবর্তী সময়ে ১৩ আগস্ট সকালে প্রাথমিকভাবে দিনাজপুর সদর ও রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় দুই প্লাটুন করে সেনাসদস্য উদ্ধার কাজে মোতায়েন করা হয়। বন্যা পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি ঘটলে বেসামরিক প্রশাসনের অনুরোধে গতকালই পানিবন্দি মানুষকে উদ্ধারের জন্য আরও অধিকসংখ্যক সেনাসদস্য মোতায়েন করা হয়।

বর্তমানে দিনাজপুর সদরে তিনটি প্লাটুন ও গঙ্গাচড়া উপজেলায় এক কোম্পানি সেনাসদস্য বন্যা দুর্গত মানুষে সাহায্যে কাজ করে যাচ্ছে। এই এলাকা দুটিতে সেনাবাহিনী দুই শতাধিক বন্যা দুর্গত মানুষকে উদ্ধারসহ বিপুল পরিমাণ গবাদি পশু ও গৃহস্থালি সামগ্রী উদ্ধার করেছে।

 

ফেসবুক মন্তব্য
xxx