পেঁয়াজের দাম স্থিতিশীল রাখতে মিশর থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: ভারতের বন্যা আর পেঁয়াজের সংকটের কারণে পেঁয়াজের দাম বাড়লেও বাকি সব নিত্য পণ্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। সচিবালয়ে নিত্য পণ্যের দাম ও সরবরাহ পরিস্থিতি নিয়ে আজ এক মত বিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

এ সময় পাইকারী ব্যবসায়ীরা খুচরা পর্যায়ে দাম বেশি রাখা হচ্ছে অভিযোগ করেন। ঘাটতি না থাকায় কোরবানির পশুর চামড়া প্রক্রিয়াজতাকরণে লবণের কোনো সংকট হবে না বলেও দাবি করেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

রোজার ঈদের পর বেশ কয়েক দিন নিত্য পণ্যের দাম সহনীয় থাকলেও হঠাৎ করে বাড়তে থাকে লবন পেঁয়াজসহ কিছু মসলার দাম। এ প্রেক্ষাপটে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে নিত্য পণ্যের দাম ও সরবরাহ পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে করণীয় নির্ধারণে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এ বৈঠক।

সভায় ব্যবসায়ীরা জানান, ভারতে বন্যার কারণে ঘাটতি এবং দেশে অতি বৃষ্টির কারণে মজুদ করা পেঁয়াজ পঁচে যাওয়ায় দাম বেড়েছে। মিশর থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হলে দাম নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে জানান তারা।

তোফায়েল বলেন, এটা আসলে তারা দিতে পারবেন না, এটি আমার কাছে বাস্তব সম্মত না। তারা নিজেরাই হিসেব দিয়েছেন ভারত থেকে পেঁয়াজ নিয়ে আসতে এখন ৪৮ থেকে ৫০ টাকা পড়ে।

এখন পেঁয়াজ ছাড়া কোনো পণ্যের মজুদ বা সরবরাহে সমস্যা নেই বলে বাণিজ্যমন্ত্রী জানান।

এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী, শিগগিরই পেঁয়াজের দাম কমার আশাবাদ ব্যক্ত করে খুচরা পর্যায়ে নিত্য পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে ব্যবসায়ীদের উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানান। এদিকে তেল, চিনিসহ অন্যান্য পণ্যের মজুদ ও সরবরাহ পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকায় দাম সহনীয় থাকবে বলে আশ্বস্ত করেন ভোগ্য পণ্য ব্যবসায়ীরা।

সভায় লবণের বাড়তি দামের কারণে কোরবানির পশুর চামড়া প্রক্রিয়াজাতকরণে সমস্যার হতে পারে ব্যবসায়ীরা এমন আশঙ্কা ব্যক্ত করলেও বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, ঘাটতি নিরসনে ৫ লাখ টন লবণ আমদানির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সভা থেকে বাজারে পণ্যের সরবরাহ ঘাটতি যাতে না হয় সেজন্য চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যানকে পচনশীল পণ্য দ্রত খালাসের ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

ফেসবুক মন্তব্য
xxx