প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানিতে কাতারের সঙ্গে ১৫ বছরের জন্য চুক্তি করছে বাংলাদেশ।

সিলনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম ::: গ্যাসের সংকট মেটাতে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানিতে কাতারের সঙ্গে ১৫ বছরের জন্য চুক্তি করেছে সরকার। পেট্রোবাংলা সূত্রের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক জ্বালানি বিষয়ক সংবাদ মাধ্যম এসঅ্যান্ডপি গ্লোবাল প্ল্যাটস খবরটি প্রকাশ করে।

এর আগে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছিল, অচিরেই চুক্তিটি হতে যাচ্ছে। অবশ্য কাতার থেকে সরকার যে এলএনজি আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে তা একাধিকবার জানিয়েছেন বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদও।

পেট্রোবাংলার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক গ্লোবাল প্ল্যাটস জানিয়েছে, চুক্তিতে সই করার জন্য গত বুধবার কাতারের রাষ্ট্রীয় জ্বালানি প্রতিষ্ঠান রাসগ্যাসের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় আসে। গত বৃহস্পতিবার দোহা এবং ঢাকার মধ্যে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানিতে ওই চুক্তি সম্পন্ন হয়। কাতারের রাসগ্যাস এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রায়ত্ত পেট্রোবাংলা চুক্তিতে সই করে। রাজধানীর পেট্রোসেন্টারে হওয়া প্রাথমিক এই চুক্তি অনুযায়ী, বছরে প্রায় দুই দশমিক পাঁচ মিলিয়ন টন এলপিজি আমদানি করবে বাংলাদেশ। ১৫ বছর ধরে তা অব্যাহত থাকবে।

নাম প্রকাশ না করা পেট্রোবাংলার ওই কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত সপ্তাহেই চুক্তিটি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মূল্য নিয়ে সমঝোতা না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তা থেমে যায়। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার দুপক্ষ আবারও মূল্যবিষয়ক বিভিন্ন ফর্মুলা নিয়ে আলোচনা করে। অবশেষে অপরিশোধিত তেলের আন্তর্জাতিক মূল্য অনুযায়ী গ্যাসের দাম নির্ধারণের বিষয়ে উভয়পক্ষ একমত হয়। সেই সঙ্গে দাম পরিশোধের পদ্ধতি, চুক্তির মেয়াদ, গ্যাসের মান ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা হয় এই বৈঠকে।

এদিকে গত জুনে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মো. ফাইজুল্লাহ গ্লোবাল প্ল্যাটসকে বলেছিলেন, কাতার সফরকালে রাসগ্যাসের সঙ্গে সরকারি পর্যায়ে প্রাথমিক আলোচনা চূড়ান্ত হয়। মূল্য ছাড়া সব ইস্যুরই সমাধান হয়েছিল তাদের ওই সফরে।

Facebook Comments