বিএনপি ভিশন টুয়েন্টি থার্টির নামে রাজনৈতিক ভাঁওতাবাজি করছে : কামরুল ইসলাম

সিলনিউজ২৪.কমঃ খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, খালেদা জিয়ার ভিশন-২০৩০ ধাপ্পাবাজির-ভেলকিবাজির। এই সব করে বিএনপি জনগণের কাছে পৌঁছাতে পারবে না।

বুধবার (১০ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবে কবি চন্দ্রাবতী ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘হাওর অঞ্চলের মানুষের আর্তনাদ’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও কৃষিবিদ ড. নিয়াজ উদ্দিন পাশার স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

কামরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি নেত্রী তাদের ভিশন নিয়ে দলের নেতাদের সাথে মিটিং করেছেন। মিটিং এ ভিশন নিয়ে দলের নেতারাই একমত হতে পারেননি। যে ভিশন নিয়ে দলের নেতাদের মধ্যই বিরোধিতা হয়েছে সেই ভিশন ঘোষণা করে জনগণকে কাছে পাওয়া যাবে না।

সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের সভাপতিত্বে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শাবান মাহমুদ, জাতীয় প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য কুদ্দুস আফ্রাদ, রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী অপর্ণ খান, কবি চন্দ্রাবতী ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক রোকন উদ্দিন পাঠান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
খাদ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের টার্গেট ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের দেশ, ২০৪১ সালে উন্নত দেশে উন্নীত হওয়া। এখন আমাদের দায়িত্ব, দেশের মানুষকে নিরাপদ খাদ্যপ্রাপ্তির যে অধিকার সেটা নিশ্চিত করা। একসময় বাংলাদেশ ছিল খাদ্য ঘাটতির দেশ, অভাবের দেশ, মঙ্গার দেশ, হতদরিদ্রের দেশ, দুর্ভিক্ষের দেশ। কিন্তু এখন আর সে অবস্থা নেই। দেশের ১৬ কোটি মানুষকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খাদ্য নিরাপত্তা দিতে সক্ষম হয়েছেন।

দেশে কোন খাদ্য সংকট না থাকলেও এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী খাদ্যের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করছে জানিয়ে কামরুল ইসলাম বলেন, খাদ্যের মজুদ বাড়াতে সরকার আন্তর্জাতিক বাজার থেকে খাদ্য আমদানির প্রক্রিয়া শুরু করেছে। সরকারের অগ্রগতি সহ্য করতে না পেরে বিএনপি ভিশন টুয়েন্টি থার্টির নামে রাজনৈতিক ভাঁওতাবাজি করছে।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে পর্যাপ্ত খাদ্যমজুদ আছে বলেই আমরা হাওর অঞ্চলে সাহায্য করতে পারছি। সাহায্য করার মত খাদ্য মজুদ সরকারের কাছে আছে। বিচলিত হওয়ার কারণ নাই। জনগণকে চিন্তায় ফেলানোর জন্যে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হব।

Facebook Comments