৫২ কোম্পানির প্রান্তিক প্রতিবেদন প্রকাশ।

সিলনিউজ২৪.কমঃ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৫২ কোম্পানি (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) সময়ের প্রথম প্রান্তিক এবং (জুলাই ১৬- মার্চ ১৭) সময়ের তৃতীয় প্রান্তিক অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানিগুলোর অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন নিচে তুলে ধরা হলো:

কনফিডেন্স সিমেন্ট লিমিটেডঃ ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭.৭১ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৭.১০ টাকা। গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৩.৬৫ টাকা। যা এর আগের বছর ছিল ৩.২৪ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭৭.৯৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৪.১৮ টাকা।

নাভানা সিএনজি লিমিটেডঃ তৃতীয় প্রান্তিকে নাভান সিএনজির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৯৮ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৮১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩২.৫৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ২.৫৪ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৪.০৯ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিলো ৩১.৪০ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৬২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ১ টাকা।

উসমানিয়া গ্লাস লিমিটেডঃ ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৫.৩১ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৪.৫৯ টাকা। এছাড়া ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১০.১৬ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১৮.৪২ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৩.২৬ টাকা (নেগেটিভ)। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৪.৪৭ টাকা (নেগেটিভ)।

রহিমা ফুড লিমিটেডঃ তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত খাদ্য ও আনুষাঙ্গিক খাতের রহিমা ফুড লিমিটেড। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৩৯ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২.৬১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৫.৪৪ টাকা।

ইয়াকিন পলিমার লিমিটেডঃ তৃতীয় প্রান্তিকে ইয়াকিন পলিমারের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭৫ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৬৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩.১৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৬৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.১২ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ১৫.৬২ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.২৭ টাকা।

বিডি থাই অ্যালুমনিয়াম লিমিটেডঃ তৃতীয় প্রান্তিকে বিডি থাইয়ের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৬০ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৮৭ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৪.৪৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৭১ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ২৮.৪৪ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.১১ টাকা। গত তিন মাসে (জানু-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.২৬ টাকা।

সমতা লেদার কমপ্লেক্স লিমিটেডঃ ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০০৬৫ টাকা (নেগেটিভ)। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৪৮ টাকা (নেগেটিভ)।এছাড়া ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৪.৬৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.০৪ টাকা (নেগেটিভ)।

গোল্ডেন সন লিমিটেডঃ ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৪৩ টাকা। এর আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ০.৩৮ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২৩.৯১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.২৭ টাকা।

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডঃ প্রথম প্রান্তিকে সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১০ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৩.৩৬ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৯.৩৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৬.২৪ টাকা।

এমারেল্ড অয়েল লিমিটেডঃ ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৯ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৩.৪৪ টাকা। গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.০২ টাকা। যা এর আগের বছর ছিল ১.১৬ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৫.৭৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.১১ টাকা।

হা-ওয়েল টেক্সটাইল লিমিটেডঃ তৃতীয় প্রান্তিকে হা-ওয়েল টেক্সটাইলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৫৪ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৫.৬৭ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৭.৫৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.৫৬ টাকা (Restated), এনওসিএফপিএস ছিল ৩.২৭ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিলো ২৫.৩৪ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.৪৮ টাকা।

অরিয়ন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডঃ ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.০২ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২.৩৩ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ৩০ শতাংশ বেড়েছে। গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৫৬ টাকা। যা এর আগের বছর ছিল ০.৩৩ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ৭০ শতাংশ বেড়েছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭১.১৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৮.৫৬ টাকা।

এপেক্স ফুটওয়্যার লিমিটেডঃ ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯.৩৬ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৮.৯০ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ৫ শতাংশ বেড়েছে।গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪.০৮ টাকা। যা এর আগের বছর লোকসান ছিল ৭.৮৫ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২২৯.৫৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৪৯.৫৫ টাকা।

ফাইন ফুডস লিমিটেডঃ তৃতীয় প্রান্তিকে ফাইন ফুডসের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫২৫ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.০৪০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১০.৯২৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে লোকসান ছিল ০.১৩৩ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.০১৬ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিলো ৯.৬৫৯ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১১৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.১১০ টাকা।

আমরা টেকনোলজি  লিমিটেডঃ তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত (জানু১৬- মার্চ১৭) আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আইটি খাতের কোম্পানি আমরা টেকনোলজি  লিমিটেড। প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে। সূত্র মতে, তৃতীয় প্রান্তিকে আমরা টেকনোলজি শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০৯ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৪৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২২.১৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৮৩ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২.৫৫ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিলো ২১.৪৬ টাকা।

মেঘনা পেট্রোলিয়াম: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৪.৩১ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১৩.২৮ টাকা। গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৪.১৯ টাকা। যা এর আগের বছর ছিল ৪.৮৯ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৮৪.৯১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২৪.৩২ টাকা।

ন্যাশনাল ফিড: তৃতীয় প্রান্তিকে ন্যাশনাল ফিড মিলসের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭৯ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৩২ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩.৫৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৭৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৩৭ টাকা (নেগেটিভ) এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ১২.৭৯ টাকা। গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.২৪ টাকা।

সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইল: তৃতীয় প্রান্তিকে সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫৪ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৬৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৫.১৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.০০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৩৬ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ১৬.৭৪ টাকা। সেই হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ৪৬ শতাংশ। গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১০ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.২৭ টাকা।

জেএমআই সিরিঞ্জ: তৃতীয় প্রান্তিকে এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪.১১ টাকা।গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৩.২৭ টাকা। সে হিসেবে কোম্পনির ইপিএস বেড়েছে ০.৮৪ টাকা বা ২৫.৬৮ টাকা। এদিকে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ১.৭০ টাকা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.১১ টাকা। এছাড়া তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১৫.৬৬ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১৬.৩৯ টাকা। আর ৩১ মার্চ ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৬৫.০৯ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৬ অর্থবছর পর্যন্ত কোম্পানির এনএভিপিএস ছিল ৬১.৫১ টাকা।

শাইনপুকুর সিরামিক: তৃতীয় প্রান্তিকে এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.১৮ টাকা।গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.৪৭ টাকা। সে হিসেবে কোম্পনির লোকসান কমেছে। এদিকে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১১ টাকা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৩৫ টাকা।এছাড়া তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৪৭ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১.১৭ টাকা। আর ৩১ মার্চ ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৮.০৭ টাকা। ৩০ জুন, ২০১৬ অর্থবছর পর্যন্ত কোম্পানির এনএভিপিএস ছিল ২৮.০৯ টাকা।

ইফাদ অটোস: তৃতীয় প্রান্তিকে এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫.০৫ টাকা।গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৩.৬১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পনির ইপিএস বেড়েছে ১.৪৪ টাকা বা  ৩৯.৮৮ শতাংশ। এদিকে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.০১ টাকা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৯৬ টাকা।এছাড়া তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৯.৯৫ টাকা (নেগেটিভ)। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৯.০৮ টাকা (নেগেটিভ)। আর ৩১ মার্চ ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৬.৯৫ টাকা। ৩০ জুন, ২০১৬ অর্থবছর পর্যন্ত কোম্পানির এনএভিপিএস ছিল ৩৩.৫৮ টাকা।

মেঘনা পেট ইন্ডাস্ট্রিজ: তৃতীয় প্রান্তিকে মেঘনা পেটের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৩০২ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.০০০২ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩.১০ টাকা (নেগেটিভ)। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ০.২৮৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.০০৪৮ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ২.৬৯ টাকা (নেগেটিভ)। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.১১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে লোকসান ছিল ০.১০৩ টাকা।

ইমাম বাটন লিমিটেড: ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.১৫ টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ০.০৭ টাকা। আগের বছর থেকে লোকসান বেড়েছে। এদিকে চলতি ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৭০ টাকা। যা আগের বছর ছিল ০.৭৬ টাকা। সে হিসেবে ৯ মাসে লোকসান কমেছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭.৬০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.১৩ টাকা।

স্টাইলক্রাফট: ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১২ টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ১৪.০৮ টাকা। এদিকে চলতি ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৩৮.৯৩ টাকা। যা আগের বছর ছিল ৩৮.৬৬ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৪৯৪.৩৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১০৩.১২ টাকা।

মেঘনা কনডেন্স মিল্ক: তৃতীয় প্রান্তিকে মেঘনা কনডেন্স মিল্কের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২.৭৬ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৬৯ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩১.৬৭ টাকা (নেগেটিভ)। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৩.১৫ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২.২৮ টাকা (নেগেটিভ) এবং ৩১ মার্চ, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ৩০.৭২ টাকা (নেগেটিভ)। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১.৩৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে লোকসান ছিল ১.২৪ টাকা।

আফতাব অটোস: ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.১৬ টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ০.৫৭ টাকা। এদিকে চলতি ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ২.৫৭ টাকা। যা আগের বছর ছিল ২.০২ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ২৭ শতাংশ বেড়েছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৫৭.৬০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.৮৮ টাকা।

আরএন স্পিনিং মিলস: ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫৭ টাকা। গত বছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ০.৪১ টাকা। এদিকে চলতি ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৫০ টাকা। আগের বছর একই সময়ে লোকসান ছিল ০.৫৪ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২৪.৮৭ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৩.১৩ টাকা।

প্রাইম টেক্সটাইল: তৃতীয় প্রান্তিকে প্রাইম টেক্সটাইলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপেএস) হয়েছে ০.৭২ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৭.৫৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৫১.০৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৭৩ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.১১ টাকা (নেগেটিভ) এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ৫১.০৭ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে লোকসান ছিল ০.২৫ টাকা।

জিপিএইচ ইস্পাত: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১.৩৪ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.৮৮ টাকা। এদিকে ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৫২ টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ০.৬২ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে ইপিএস ১৬ শতাংশ কমেছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৫.৫৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.৮৩ টাকা।

বঙ্গজ: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৪৭ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৭৮ টাকা। এদিকে ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.১৭ টাকা। গত বছরের একই সময়ে লোকসান ছিল ০.২৫ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২২.২৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৬৭ টাকা।

ইউনিক হোটেল: তৃতীয় প্রান্তিকে ইউনিক হোটেলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপেএস) হয়েছে ১.৪৯ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৫৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৮৮.৫৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.৫৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৮৫ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ৮৯.২৪ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.৬৬ টাকা।

রংপুর ডেইরি: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৫ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৩৯ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ১৫ শতাংশ বেড়েছে। এদিকে ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.২৩ টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ০.১৬ টাকা। ইপিএস বেড়েছে ৪৪ শতাংশ। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৬.৬২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৭৬ টাকা।

দেশ গার্মেন্টস: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬.৫৩ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ২.৬৩ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ১৪৮ শতাংশ বেড়েছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২০.৩০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১.৬৯ টাকা (মাইনাস)।

সেন্ট্রাল ফার্মাসিটিক্যাল: তৃতীয় প্রান্তিকে সেন্টাল ফার্মার শেয়ার প্রতি আয় (ইপেএস) হয়েছে ১.০৯ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.১৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৬.৮২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৭৫ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.০৬ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ১৫.৭৩ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.২০ টাকা।

ফার কেমিক্যাল: তৃতীয় প্রান্তিকে ফার কেমিক্যাল শেয়ার প্রতি আয় (ইপেএস) হয়েছে ১.৬২ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৫৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৫.৪৯  টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৭৫ টাকা (Restated), এনওসিএফপিএস ছিল ০.৬৯ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিলো ১৬.০৬ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.৭৫ টাকা (Restated), এনওসিএফপিএস ছিল ০.৬৯ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিলো ১৬.০৬ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.২৫ টাকা (Restated)।

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১১.৩৯ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৯.৭৪ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে ইপিএস ১৭ শতাংশ বেড়েছে।এদিকে ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৪.২৭ টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ৩.৬৪ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে ইপিএস ১৭ শতাংশ বেড়েছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৬৭.৫১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১২.৩৫ টাকা।

ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স: প্রথম প্রান্তিকে ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১০ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.১৭ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১১.৫৬  টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.১২ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.০৬ টাকা (নেগেটিভ) এবং এনএভিপিএস ছিলো ১১.৪৭ টাকা।

স্কয়্যার টেক্সটাইলস: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৯৪ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৩.১৩ টাকা। এদিকে ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৪১ টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ১.০১ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৪০.৭০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৭২ টাকা।

আলিফ ইন্ডাষ্ট্রিজ: তৃতীয় প্রান্তিকে এ কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ১.৯৮ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.৭২ টাকা। অর্থাৎ তৃতীয় প্রান্তিকে এ কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.২৬ টাকা। এছাড়া চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ০.৬৭ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.৬৫ টাকা। তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.১৬ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.১০ টাকা। এছাড়া চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে কোম্পানির এনওসিএফপিএস হয়েছে ০.১৪ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.০৩ টাকা। ৩১ মার্চ ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১২.৪৫ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৯.৫১ টাকা।

রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স: প্রথম প্রান্তিকে রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০৩ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৫১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে৫৮.৫১  টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৮৪ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.২৬ টাকা (নেগেটিভ) এবং এনএভিপিএস ছিলো ৫০.৭৩ টাকা।

অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১.৫১ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৯৭ টাকা। এদিকে ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৭৫ টাকা। গত বছরের একই সময়ে লোকসান ছিল ০.৩৯ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২৬.১৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.২৮ টাকা।

ফার্মা  এইডস: তৃতীয় প্রান্তিকে ফার্মা এইডসের শেয়ার প্রতি আয় (ইপেএস) হয়েছে ২.২৭ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.৯০ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৬.৬২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.১৭ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.২৯ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ৪২.৪৫ টাকা।

বিচ হ্যাচারি: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৩৫ টাকা। আগের বছর একই সময়ে লোকসান ছিল ০.০৯ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১০.৯১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.০১ টাকা (মাইনাস)।

কহিনূর কেমিক্যাল: তৃতীয় প্রান্তিকে কহিনূর কেমিক্যালের শেয়ার প্রতি আয় (ইপেএস) হয়েছে ৭.৪৬ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩৬.০৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪০.৮৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ছিল ৫.১৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২৪.৮৯ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ৩৪.২৫ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৮৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ১.০৪ টাকা।

জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশনস: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪০ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৩৪ টাকা। এদিকে গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.১৭ টাকা। যা এর আগে ছিল ০.১৬ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১২.৫১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৫৪ টাকা।

মুন্নু সিরামিক: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১২ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.২২ টাকা। এদিকে গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.০২ টাকা। যা এর আগে ছিল ০.০৭ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৯৪.৮৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.৯৯ টাকা (মাইনাস)।

ওরিয়ন ইনফিউশন: তৃতীয় প্রান্তিকে ওরিয়ন ইনফিউশনের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.১৪ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৯২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১২.৭৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.৮৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.২২ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ১২.৯৮ টাকা। এছাড়া গত তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.২৯ টাকা।

মুন্নু জুট: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৬০ টাকা। গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.২৩ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৫২.২৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.৫৩ টাকা।

ওয়াটা ক্যামিকেলস: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.২৭ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২.৫৬ টাকা। আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ২৮ শতাংশ বেড়েছে। গত তিন মাসে (জানুয়ারি’১৭-মার্চ’১৭) পর্যন্ত কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১.১১ টাকা। যা এর আগের বছর ছিল ০.৯৮ টাকা। ইপিএস বেড়েছে ১৩ শতাংশ। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭৮.৩৬ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৪.৩৪ টাকা।

তাল্লু স্পিনিং মিলস: ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৭০ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৬৬ টাকা। এদিকে ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.২৭ টাকা। গত বছরের একই সময়ে লোকসান ছিল ০.৪৩ টাকা। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৩.৫২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৬৭ টাকা (নেগেটিভ)।

ইবিএল এনআরবি মিউচ্যুয়াল ফান্ড: তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই১৬-মার্চ১৭) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.২৩ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.২২ টাকা। সে হিসেবে ফান্ডটির ইপিইউ আগের তুলনায় বেড়েছে। এছাড়া আলোচিত সময়ে ইউনিট প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ০.১৯ টাকা । যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.২১ টাকা। ৩১ মার্চ ২০১৭ সমাপ্ত সময়ে বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১১.৮৫ টাকা, যা ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত সময়ে ছিল ১০.৮৬ টাকা। আর ৩১ মার্চ ২০১৭ সময়ে ক্রয় মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১০.৬০ টাকা, যা ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে ছিল ১০.৮৫ টাকা। এদিকে, গত তিন মাসে (জানুয়ারী-মার্চ’১৭) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.১০ টাকা। যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল ০.০৩ টাকা।

এবি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই১৬-মার্চ১৭) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.২৯ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.৩৬ টাকা। সে হিসেবে ফান্ডটির ইপিইউ আগের তুলনায় কমেছে। এছাড়া আলোচিত সময়ে ইউনিট প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ০.৩২ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.৩৬ টাকা। ৩১ মার্চ ২০১৭ সমাপ্ত সময়ে বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১২.৭০ টাকা, যা ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত সময়ে ছিল ১১.৬৭ টাকা। আর ৩১ মার্চ ২০১৭ সময়ে ক্রয় মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১০.৯৭ টাকা, যা ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে ছিল ১১.৩৩ টাকা।এদিকে, গত তিন মাসে (জানুয়ারী-মার্চ’১৭) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.১২ টাকা। যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল ০.০৬ টাকা।

পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই১৬-মার্চ১৭) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.৫৫ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.০৬ টাকা। সে হিসেবে ফান্ডটির ইপিইউ আগের তুলনায় কমেছে। এছাড়া আলোচিত সময়ে ইউনিট প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ০.৪২ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.৩২ টাকা। ৩১ মার্চ ২০১৭ সমাপ্ত সময়ে বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১২.২৬ টাকা, যা ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত সময়ে ছিল ১১.০৭ টাকা। আর ৩১ মার্চ ২০১৭ সময়ে ক্রয় মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১০.৯৭ টাকা, যা ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে ছিল ১১.১৬ টাকা। এদিকে, গত তিন মাসে (জানুয়ারী-মার্চ’১৭) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.১১ টাকা। যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল ০.২৮ টাকা (নেগেটিভ)।

Facebook Comments