পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১০ কোম্পানির তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ।

সিলনিউজ২৪.কমঃ  দেশের পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১০ কোম্পানির তৃতীয় প্রান্তিকের (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

কোম্পানিগুলো হলো: আইসিবি, ইভিন্স টেক্সটাইল, মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ, কাশেম ড্রাইসেলস, আর্গন ডেনিমস, শ্যামপুর সুগার, জিলবাংলা সুগার, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, ন্যাশনাল পলিমার ও রেনউইক যজ্ঞেশ্বর।

আইসিবি:  পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) লিমিটেড তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ৯ মাসে (জুলাই,১৬- মার্চ,১৭) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা ৩৩ পয়সা (এককভাবে)। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ১ টাকা ৩ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ৫ টাকা ৬৭ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে যা ছিল ১ টাকা ৬০ পয়সা। এ সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭১ টাকা ৮ পয়সা। শেষ ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ,১৭) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২ টাকা ৩২ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে লোকসান ছিল ১১ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির সমন্বিত আয় হয়েছে ৩ টাকা ৩৮ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে যা ছিল ৮ পয়সা।

ইভিন্স টেক্সটাইল: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি ইভেন্স টেক্সটাইল লিমিটেড।তৃতীয় প্রান্তিকের (জুলাই’১৬-মার্চ’১৭) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পনির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.১৫ টাকা। তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.১৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৪.৬৯ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.১৪ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছিলো ১৪.২৮ টাকা (নেগেটিভ)।এদিকে গত তিন মাসে (জানুয়ারী-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৩৬ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.২৯ টাকা।

মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ: জুলাই’১৬ থেকে মার্চ’১৭ পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৮৯ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৭১ টাকা। আলোচিত সময়ে ইপিএস ২৫.৩২ শতাংশ বেড়েছে। সর্বশেষ ৩ মাসে(জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ০.৩৬ টাকা। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ০.৩৫ টাকা। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৪৩.২০ টাকা। যা ৩০ জুন, ২০১৬ শেষে ছিল ৪২.৩১ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.০১ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.২৪ টাকা।

কাশেম ড্রাইসেল: জুলাই’১৬ থেকে মার্চ’১৭ পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৮৩ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.৭৯ টাকা। সর্বশেষ ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ৩৪ পয়সা। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ৩৩ পয়সা। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৪৪.৫৩ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৪৮.০৪ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১.২৮ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৩.৫৬ টাকা।

আর্গন ডেনিমস: জুলাই’১৬ থেকে মার্চ’১৭ পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৭০ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.৯৪ টাকা। সর্বশেষ ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ০.৯৭ টাকা। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ০.৬২। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ২৫.৩৯ টাকা। যা ৩০ জুন, ২০১৬ শেষে ছিল ২৭.১০ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.৯২ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২.৬৭ টাকা।

শ্যামপুর সুগার মিলস: জুলাই’১৬ থেকে মার্চ’১৭ পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪৩.৬২ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৫১.৭২ টাকা। সর্বশেষ ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানির লোকসান হয়েছে ৮.৬৩ টাকা। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ১২.৫০। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি দায় (এনএভি) হয়েছে ৬৩১.২৪ টাকা। যা ৩০ জুন, ২০১৬ শেষে ছিল ৫৮৭.৬২ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৪২.৫৭ টাকা (মাইনাস)। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৫০.৬৬ টাকা (মাইনাস)।

ঝিলবাংলা সুগার মিলস: জুলাই’১৬ থেকে মার্চ’১৭ পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২৬.৯৮ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৪০.২৭ টাকা। সর্বশেষ ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানির লোকসান হয়েছে ২.৯৬ টাকা। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ১১.২১। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি দায় (এনএভি) হয়েছে ৩৯৭.৭১ টাকা।

আনোয়ার গ্যালভানাইজিং: জুলাই’১৬ থেকে মার্চ’১৭ পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয়(ইপিএস) হয়েছে ০.৮৮ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৭১ টাকা। দেখা যাচ্ছে আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ২৪ শতাংশ বেড়েছে। সর্বশেষ ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ০.৪২ টাকা। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ০.৩৪ টাকা। অর্থাৎ আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ২৪ শতাংশ বেড়েছে। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৮.৬৫ টাকা। যা ৩০ জুন, ২০১৬ শেষে ছিল ৮.৪২ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.৮০ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২.৪১ টাকা।

ন্যাশনাল পলিমার: জুলাই’১৬ থেকে মার্চ’১৭ পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.০৪ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.৮৯ টাকা। দেখা যাচ্ছে আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ৮ শতাংশ বেড়েছে। সর্বশেষ ৩ মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ০.৫৩ টাকা। গত বছর একই সময়ে যা ছিল ০.৭৪ টাকা।অর্থাৎ আলোচিত সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ইপিএস ২৮.৩৭ শতাংশ কমেছে। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৫০.২৬ টাকা। যা ৩০ জুন, ২০১৬ শেষে ছিল ৪৮.২২ টাকা।এছাড়া শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ(এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.১০ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২.৪৯ টাকা।

রেনউইক যজ্ঞেশ্বর: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকরি নগদ প্রবাহ পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১১.৮৫ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩৩.৩৮ টাকা (নেগেটিভ)। যা এর আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ২.২১ টাকা, এনওসিএফপিএস হয়েছে ০.৮৮ টাকা (নেগেটিভ) এবং ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছিলো ৩৫.৬৮ টাকা (নেগেটিভ)। এদিকে গত তিন মাসে (জানুয়ারী-মার্চ’১৭) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৮৩ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৭৬ টাকা।

Facebook Comments