দেশের প্রথম ‘ডিজিটাল আইল্যান্ড’ হচ্ছে কক্সবাজারের মহেশখালী।

সিলনিউজ২৪.কমঃ দেশের প্রথম ‘ডিজিটাল আইল্যান্ড’ হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে কক্সবাজারের দ্বীপ মহেশখালীকে।

বৃহস্পতিবার (২৭ এপ্রিল) সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

ডিজিটাল দ্বীপ প্রকল্পে উচ্চগতির ইন্টারনেট এবং তথ্যপ্রযুক্তি-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সমাধানের ব্যবহার নিশ্চিত করা হয়। প্রায় ৩৬২ দশমিক ১৮ বর্গকিলোমিটার আয়তনের মহেশখালী দ্বীপের ৩ লাখ বাসিন্দার জীবনমানের উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে সরকার।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন জানিয়েছেন, তথ্যপ্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ থেকে ইতিমধ্যে মহেশখালী উপজেলাকে ‘ডিজিটাল আইল্যান্ড’ ঘোষণা করা হয়েছে। কোরিয়ান টেলিকম (কেটি) প্রতিষ্ঠানের কারিগরি সহায়তায় প্রকল্পটি যৌথভাবে বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ সরকার ও আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম)।

প্রায় ২২ কোটি ৩৫ লাখ ৮১ হাজার টাকার এ প্রকল্পের কাজ ২০১৮ সালের ৩০ জুনের মধ্যে শেষ হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে দ্বীপের দরিদ্র লোকজনের জীবনমানের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটবে। আর্থসামাজিক বৈষম্য কমে যাবে। জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের মাধ্যমে দ্বীপের জনগণের অনিয়ন্ত্রিত অভিবাসন কমে যাবে বলে মনে করছে জেলা প্রশাসন।

আইওএমের প্রকল্প কর্মকর্তা রেজাউল আল মাসুম জানিয়েছেন, প্রকল্পের আওতায় সম্প্রতি উপজেলার একটি পৌরসভা ও দুটি ইউনিয়নে প্রায় ১৯ কিলোমিটারের অপটিকাল ফাইবার লাইন টানা হয়েছে। ইতিমধ্যে ১২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দুটি মাদ্রাসা, চারটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও কমিউনিটি ক্লিনিক, চারটি সরকারি দপ্তরসহ ওই ২৫টি ভবনে সংযোগ দেওয়া হয়েছে।

আইওএম বলছে, ভৌগোলিক অবস্থান,অবকাঠামো ও মানবসম্পদের অভাব এবং অনিয়ন্ত্রিত অভিবাসন বিবেচনায় নিয়ে মহেশখালীকে ‘ডিজিটাল আইল্যান্ড’ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে।

Facebook Comments