ইলিয়াস আলীসহ বিএনপি’র নেতাকর্মীদের গুম করে আওয়ামী লীগ অপরাজনীতির বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছেঃ শামসুজ্জামান দুদু।

সিলনিউজ২৪.কমঃ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন ‘ইলিয়াস আলীসহ বিএনপি’র নেতাকর্মীদের গুম করে আওয়ামী লীগ অপরাজনীতির বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছে। তাদের দলের প্রতিষ্ঠাতার আমলেও সিরাজ শিকদারসহ ৪০ হাজার মানুষকে গুম করেছিল। জিয়াউর রহমানের হাতেগড়া দল বিএনপি হচ্ছে গণতন্ত্রের জন্য আশির্বাদ আর আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের জন্য অভিশাপ। তাই কোন ষড়যন্ত্রই সফল হবে না। ইলিয়াস আলীসহ গুমকৃত নেতাকর্মীদের অক্ষত অবস্থায় ফিরিয়ে দিতে হবে, তা না হলে আওয়ামী লীগকে চরম মূল্য দিতে হবে।

সিলেট জেলা বিএনপি আয়োজিত সোমবারের (২৪ এপ্রিল) বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তবে দুদু উপরোক্ত কথা বলেন।


নিখোঁজ হওয়া বিএনপির সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, এম. ইলিয়াস আলীসহ নিখোঁজ নেতাকর্মীদের সন্ধান ও সরকার কর্তৃক নিরীহ নেতাকর্মীদের গুম-খুনের প্রতিবাদে সিলেট জেলা বিএনপি উক্ত প্রতিবাদী বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট জেলা সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীমের সভাপতিত্বে ও জেলা সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদের পরিচালনায় দরগাহ গেইটস্থ কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের শহীদ সুলেমান হলে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- বিএনপি কেন্দ্রীয় সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হোসান জীবন।

সমাবেশে অ্যাডভোকেট শামসুজ্জামান দুদু আরো বলেন ‘ইলিয়াস আলীর সাহসী নেতৃত্ব সিলেট তথা দেশবাসীর জন্য অনুকরণীয়। আমরা বিশ্বাস করি সরকার তাকে গুম করে রেখেছে। অবিলম্বে আমাদের কাছে ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হবে। সুনামগঞ্জ তথা হাওরাঞ্চলের মানুষের জন্য ত্রাণসহ প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করতে হবে। সুনামগঞ্জ নিয়ে ত্রাণ ও দুর্যোগ সচিবের বক্তব্য ক্ষতিগ্রস্ত হাওরাঞ্চলের মানুষের সাথে উপহাসের শামিল। তিনি বলেন, আশা করি, সরকার নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহাল করে সকল দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু জাতীয় নির্বাচন আয়োজন করবেন।

উক্ত সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, সাবেক জেলা সভাপতি ও ওসমানীনগর উপজেলা চেয়ারম্যান মঈনুল হক চৌধুরী, বালাগঞ্জ উপজেলা বিএনপি সভাপতি কামরুল হুদা জায়গীরদার, গোলাপগঞ্জ উপজেলার সাবেক আহবায়ক নজরুল ইসলাম ময়ুর, জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক একেএম তারেক কালাম, বিশ্বনাথ উপজেলা সভাপতি জালাল উদ্দিন চেয়ারম্যান, ওসমানীনগর উপজেলা সভাপতি মোতাহির আলী, সদর উপজেলা সিনিয়র সহ-সভাপতি আজির উদ্দিন চেয়ারম্যান, শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুরমান আলী, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশীদ মামুন চেয়ারম্যান, জেলা মহিলা দলের সভাপতি পাপিয়া চৌধুরী, মহানগর মহিলা দলের সভাপতি অধ্যাপিকা সামিয়া চৌধুরী, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সাঈদ আহমদ, বিএনপি নেতা আব্দুল জব্বার তুতু, আবুল কাশেম, শামীম আহমদ, তাজ মো. ফখর উদ্দিন, লল্লিক আহমদ চৌধুরী, ডা. আশরাফ আলী, জসিম উদ্দিন, ইউনুছ মিয়া, কাউন্সিলার সালেহা কবির শেপি, বিশ্বনাথ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নুর উদ্দিন, আব্দুল মুনিম চেয়ারম্যান, আব্দুল লতিফ খান, বজলুর রহমান ফয়েজ, হাবিবুর রহমান হাবিব, মনিরুল ইসলাম তুরন প্রমুখ।

Facebook Comments