শরণার্থী পুনর্বাসন চুক্তি বহাল রাখছে যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়া।

সিলনিউজ২৪.কমঃ অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে শরণার্থী পুনর্বাসনের চুক্তি বাস্তবায়নের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুলের সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এ কথা জানিয়েছেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে করা এই চুক্তিকে বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক সময় ‘বধির’ বলে সমালোচনা করেছিলেন।

অস্ট্রেলিয়া সফররত পেন্স সিডনিতে গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে শরণার্থী চুক্তি সম্পর্কে বলেন, ‘আমরা আমাদের এক গুরুত্বপূর্ণ মিত্রের সম্মানে ওই চুক্তি বাস্তবায়ন করবো।’ তবে তিনি এটাও বলেন, এ চুক্তি বহাল রাখার মানে এই নয় যে, আমরা চুক্তিটির পক্ষে রয়েছি।’ চুক্তি অনুযায়ী, পাপুয়া নিউগিনি ও নাউরু দ্বীপের শরণার্থী শিবিরে আটক থাকা এক হাজার ২৫০ জন শরণার্থীকে গ্রহণ করবে যুক্তরাষ্ট্র। এর বিপরীতে এল সালভাদর, গুয়েতেমালা এবং হন্ডুরাসের শরণার্থীদের গ্রহণ করবে অস্ট্রেলিয়া।

পেন্সের বক্তব্যের পরেও চুক্তিটি নিয়ে আশঙ্কায় রয়েছেন মানবাধিকার কর্মীরা। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের অস্ট্রেলিয়া শাখার শরণার্থী বিষয়ক সমন্বয়ক গ্রাহাম থম বলেন, ‘এটা এখনো পরিষ্কার নয় যে, কতজন মানুষ যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন গ্রহণের সুযোগ পাবেন। এ বিষয়টিতে স্বচ্ছতা প্রয়োজন।’ প্রসঙ্গত, অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের সম্পর্ক প্রথম থেকেই খুব একটা ভালো যাচ্ছে না। ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণের পর শুভেচ্ছা জানাতে ফোন করেছিলেন টার্নবুল। তখন ওই শরণার্থী পুনর্বাসন চুক্তি নিয়ে দুই নেতার মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। এক পর্যায়ে ধমক দিয়ে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর ফোন কেটে দেন ট্রাম্প।

গত বছরের শেষদিকে ওবামা অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে চুক্তিটি করেন। তখন  ট্রাম্প চুক্তির বিষয়ে বলেছিলেন, ‘কীভাবে ওবামা প্রশাসন এ ধরনের চুক্তি করতে পারে তা বোধগম্য হয় না।’ পরে এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প লিখেন, ‘‘আপনারা কি বিশ্বাস করেন, ওবামা প্রশাসন অস্ট্রেলিয়া থেকে হাজার হাজার শরণার্থীকে যুক্তরাষ্ট্রে আনতে চুক্তি করেছে। আমি এই ‘বধির’ চুক্তিটি খতিয়ে দেখবো।

Facebook Comments