টটেনহ্যামকে ৪-২ গোলে হারিয়ে এফএ কাপের ফাইনালে চেলসি।

সিলনিউন২৪.কমঃ চেলসির জয়রথ চলছেই। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকার পাশাপাশি এফএ কাপেও দেখা গেল তার প্রতিফলন। শনিবার রাতে টটেনহ্যামকে ৪-২ গোলে হারিয়ে এফএ কাপের ফাইনালে উঠেছে কন্তের শিষ্যরা।

লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে সেমিফাইনালে এডেন হ্যাজার্ড, ডিয়েগো কস্তা এবং সেস ফ্যাব্রিগাসকে প্রথমার্ধে বিশ্রামে রেখেই দল সাজিয়েছিলেন কন্তে। এরপরও গোল পেতে খুব বেশি অপেক্ষা করতে হয়নি ব্লুজদের। ম্যাচের ৫ মিনিটের মাথায় চেলসি এগিয়ে যায় উইলিয়ানের গোলে। ২৫ গজ দূর থেকে দুর্দান্ত এক ফ্রি-কিকে স্পার গোলরক্ষক হুগো লরিসকে বোকা বানিয়ে জালে বল জড়ান উইলিয়ান।

সমতায় ফিরতেও বেশি সময় নেয়নি টটেনহ্যাম। ম্যাচের ১৮ মিনিটে হ্যারি কেনের মাথা ছোঁয়া বল চেলসি গোলরক্ষক থিবো কোর্তোয়া ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হলে গোল পায় টটেনহ্যাম। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে আবারও এগিয়ে যায় চেলসি। পেনাল্টি থেকে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন উইলিয়ান।

মধ্যবিরতি থেকে ফিরে আবারও সমতা টানে টটেনহ্যাম। ম্যাচের ৫২ মিনিটে ডেলে আলির গোলে স্বস্তি ফেরে স্পার শিবিরে। সেই স্বস্তি অবশ্য বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। ৬১ মিনিটে উইলিয়ানকে উঠিয়ে নিজের তুরুপের তাস এডেন হ্যাজার্ডকে মাঠে নামান কন্তে। পরে ৭৫ মিনিটে ২০ গজ দূর থেকে এক বুলেট গতির শটে টটেনহ্যামের সমর্থকদের স্তব্ধ করে দেন এই বেলজিয়াম তারকা ফরোয়ার্ড।

টটেনহ্যামের যতটুকু আশা ছিল সেটিও কেড়ে নেন নেমানিয়া মাতিচ। ম্যাচের ৮০ মিনিটে ২৫ গজী এক শটে এই সার্বিয়ান মিডফিল্ডার প্রতিপক্ষের জাল খুঁজে নেন। তাতে চেলসির লিড বেড়ে দাঁড়ায় ৪-২ গোলে।

শেষদিকে মরিয়া চেষ্টা করেও আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি টটেনহ্যাম। ওই ব্যবধানে জিতেই ফাইনালের টিকিট কাটা হয়ে যায় চেলসির। লিগ শিরোপার পাশাপাশি এখন এফএ কাপ জিতে মৌসুমের ডাবল জেতার সুবর্ণ সুযোগ থাকছে কন্তের হাতে।

ফাইনালে ম্যানসিটি অথবা আর্সেনাল যেকোনো এক দলের মুখোমুখি হবে চেলসিকে।

Facebook Comments