পঁচাত্তরের পর ইতিহাস বিকৃত হয়ে গেল: শেখ হাসিনা

সিলনিউজ২৪.কমঃ পঁচাত্তরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার পর ইতিহাস বিকৃত করা হয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন পঁচাত্তরের পর সমস্ত ইতিহাস বিকৃত হয়ে গেল। একজন ঘোষক হয়ে গেল, একজন একটা বাঁশি ফুঁ দিল তো মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে গেল। নানা ধরনের কাল্পনিক ইতিহাস দিয়ে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করা হলো। ২১টি বছর একটি জাতির জন্য কম সময় নয়। অনেক পানি গড়িয়েছে। ১৬ এপ্রিল রোববার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের নবনির্মিত নিজস্ব ভবনের উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ স্বাধীন করার প্রস্তুতি বঙ্গবন্ধুর অনেক আগে থেকেই ছিল বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সবসময়ই বলতেন, স্বাধীন হওয়া ছাড়া আমাদের উপায় নেই’।

শেখ হাসিনা বলেন, পঁচাত্তরের পর যে ঘটনা, যে অপপ্রচার চলেছে, তাতে অনেকে বিভ্রান্ত হয়েছে। সত্যিকার ইতিহাস জানতে পারেনি।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের গুরুত্ব তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রজন্মের পর প্রজন্ম যেন জানতে পারে, কত বড় ত্যাগের বিনিময়ে এই স্বাধীনতা অর্জন করেছি। সেই স্মৃতিচিহ্নগুলো তারা দেখবে, সেই স্মৃতিচিহ্নগুলো তারা উপলব্ধি করবে, অন্তরে ধারণ করবে, সেভাবে তাদের চরিত্র গঠন করবে। দেশপ্রেমে তারা উদ্বুদ্ধ হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির জনকের নীতি অনুযায়ী আমরা বন্ধু রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে কাজ করছি। আমরা স্থল সীমান্তে যে ছিটমহল সমস্যা ছিল তা সমাধান করেছি। সমুদ্রসীমা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে গিয়েছি। সমুদ্রসীমা জয় করেছি। কিন্তু কোনো বন্ধুত্বে চিড় ধরেনি।

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সরকারি তহবিল থেকে দেওয়া ১০২ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রায় এক একর জায়গায় মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের নয়তলা ভবন নির্মিত হয়েছে। স্থপতি তানজিম হাসান সেলিমের নকশায় দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্যশৈলীর জাদুঘর ভবনটি গড়া হয়েছে।

এ ভবনের এক লাখ ৮৫ হাজার বর্গফুট আয়তনের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক প্রদর্শনে চারটি গ্যালারি রয়েছে। শব্দ ও আলোর প্রক্ষেপণের বিশেষ প্রদর্শনী থাকছে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে।

Facebook Comments