মুস্তাফিজকে একাদশের বাইরে রেখেও হারতে হলো হায়দারাবাদকে।

সিলনিউজ২৪.কমঃ প্রথম ম্যাচে একটু ভালো বল করতে পারেননি মোস্তাফিজ। এরপর দ্বিতীয় ম্যাচে তাকে একাদশের বাইরে রাখা হলো তাকে। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের এমন সিদ্ধান্তে লাভ হয়নি। ফিজের পরিবর্তে যে ময়েজেস হেনরিক্সকে নেয়া হয়েছে, তিনি সুবিধা করতে পারেননি। হারতে হয়েছে ১৭ রানে।

ডেভিড ওয়ার্নার টস জিতে আগে বল করার সিদ্ধান্ত নেন। কলকাতা এদিনও ওপেনিংয়ে নারিন-চমক অব্যাহত রাখে। সেই চমকে অবশ্য কোনও কাজ হয়নি। ৯ বল খেলে ভুবনেশ্বর কুমারের বলে বোল্ড হয়ে ফিরে যান স্পিনার থেকে ব্যাটসম্যানের তকমা লাগানো সুনিল নারিন।

গম্ভীরকে ফেরান রশিদ খান। ১৬ বলে ১৫ করে বোল্ড হন ভারতীয় দলের সাবেক ওপেনার। কাজের কাজ করেন গম্ভীরের আগের মৌসুমের উদ্বোধনী সঙ্গী রবীন উথাপ্পা। ৩৯ বলে ৬৮ রান করে দলের স্কোর বড় করেন। ছয় হাঁকান চারটি, চারের মার ছিল পাঁচটি। ৩৫ বলে ৪৬ রান করে উথাপ্পাকে সঙ্গ দেন মনিষ পাণ্ডে।

ভুবনেশ্বর কুমার চার ওভারে ২০ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন। একটি করে উইকেট নিয়েছেন আশিস নেহেরা, বেন কাটিং, এবং রশিদ খান।

মোস্তাফিজের পরিবর্তে মাঠে নামা হেনরিক্স দুই ওভারের প্রথম স্পেলে ২৬ রান দিয়ে উইকেটহীন থাকায় তাকে বসিয়ে দেন ওয়ার্নার।

কেকেআর শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেট হারিয়ে ১৭২ রান তোলে।

জবাব দিতে নেমে হায়দরাবাদ দলীয় ৪৬ রানের মাথায় শেখর ধাওয়ানকে (২৩) হারায়। ৫৯ রানের মাথায় ফিরে যান খাবি খেতে থাকা ডেভিড ওয়ার্নার (২৬)।

হেনরিক্সকে ওয়ানডাউনে নামানো হয়। বোলিংয়ের মতো ব্যাট হাতেও ব্যর্থ তিনি। ১০ বলে ১৩ করে ফিরে যান।

পরের লড়াইটা শুধু যুবরাজ সিংয়ের। দীপক হুদার সঙ্গে ৩১ রানের জুটি গড়ার পর বেন কাটিংয়ের সঙ্গে ১৬ রানের জুটি গড়েন। বিপজ্জনক হয়ে উঠতে থাকা যুবরাজকে ফেরান ওকস। যাওয়ার আগে ১৬ বলে ২৬ করেন।

যুবরাজ ফিরে গেলে হায়দরাবাদের শেষ আশাও নিভে যেতে থাকে।

কেকেআরের সুনীল নারিন এদিন কিপটে বোলিংয়ে নিজেকে একধাপ এগিয়ে রাখেন। চার ওভার হাত ঘুরিয়ে ১৮ রান দিয়ে এক উইকেট নেন। কুলদীপ যাদব ২৩ রান দিয়ে ফেরান একজনকে। ক্রিস ওকস দুই উইকেট নিতে খরচ করেছেন ৪৯ রান।

Facebook Comments