প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাত করেছেন ভারতের বিরোধী দলের নেতা ও কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী।

ভারত সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন দেশটির প্রধান বিরোধী দলীয় নেতা সোনিয়া গান্ধী। রোববার রাষ্ট্রপতি ভবনে প্রধানমন্ত্রীর সাথে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস দলের সভাপতির এই সাক্ষাৎ হয়।

এসময় সোনিয়া গান্ধীর সাথে আরও উপস্থিত ছিলেন তার ছেলে ও কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং।

রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে নয়াদিল্লিতে রাষ্ট্রপতি ভবনের দক্ষিণ ড্রয়িং রুমে এই সাক্ষাৎ হয়।

সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর প্রধানমন্ত্রী রাইসিনা হিলে ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির দেয়া এক নৈশভোজে অংশ নেবেন।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত রয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক, বাগেরহাটের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ।

চারদিনের ভারত সফরের তৃতীয় দিন আজমীর শরীফে মঈনুদ্দিন চিশতীর (র.) দরগাহ শরীফ জিয়ারত করে দিন শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার সকালে নয়া দিল্লি থেকে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি বিশেষ ফ্লাইটে জয়পুরের উদ্দেশ্যে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীরা। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে করে আজমীরে যান তারা। বাংলাদেশ সময় সাড়ে ১১টার দিকে প্রধানমন্ত্রী আজমীর শরীফে পৌঁছান। সেখানে খাজা মঈনুদ্দিন চিশতীর (র.) দরগাহ শরীফ জিয়ারত করেন তিনি।

এর আগে ২০১০ সালে ভারত সফরে গিয়েও আজমীর শরীফ জিয়ারত করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

শুক্রবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চার দিনের (৭এপ্রিল থেকে ১০ এপ্রিল) সরকারি সফরে নয়াদিল্লী গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর পর্যায়ের শীর্ষ বৈঠকের পর তাদের উপস্থিতিতে প্রতিরক্ষা, ঋণ, মহাকাশ, পারমাণবিক শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহার, তথ্যপ্রযুক্তি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানিসহ বিভিন্ন খাতের মোট ২২টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে দু’দেশের বন্ধুত্বকে নতুন মাত্রা দেয়ার প্রত্যাশায় এ সফরে গেছেন শেখ হাসিনা।

Facebook Comments