নিউজটি পড়া হয়েছে 14

হায়দরাবাদ হাউসে হাসিনা-মোদি শীর্ষ বৈঠক। বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে ৩৬টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সাক্ষর।

প্রতিরক্ষা-জ্বালানিসহ নানা খাতে ৩৬টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই করেছে ঢাকা-দিল্লি। বাংলাদেশের জন্য সাড়ে চারশ কোটি ডলারের নতুন ঋণ সহায়তার ঘোষণাও দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। আর পাট ও পাটজাত পণ্যে অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্ক প্রত্যাহারের আহ্বান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।

হায়দরাবাদ হাউসে হাসিনা-মোদি শীর্ষ বৈঠকের পর দুই প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে সই হয় ৩৬টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক।

এর মধ্যে রয়েছে প্রতিরক্ষা, সাইবার নিরাপত্তা, পরমাণু বিদ্যুৎ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, স্যাটেলাইট ও মহাকাশ গবেষণাসহ কমিউনিটি ক্লিনিক ও বর্ডার হাট স্থাপনের মতো বিষয়ে। 

এসময় সাড়ে চারশ কোটি ডলারের নতুন ঋণ সহায়তা ও প্রতিরক্ষা খাতে ৫০ কোটি ডলার সহায়তার ঘোষণা দেন নরেন্দ্র মোদি। মেলে আরও ৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেয়ার প্রতিশ্রুতিও।

নরেন্দ্র মোদি বলেন,”অগ্রাধিকারমূলক প্রকল্প বাস্তবায়নে বাংলাদেশকে সাড়ে চারশ কোটি ডলারের অর্থ সহায়তা দেয়া হবে।এর বাইরে ৫০ কোটি ডলার দেয়া হবে সামরিক খাতে। যা বাংলাদেশের চাহিদার ভিত্তিতে দেয়া হবে,।

ভারতকে গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন সহযোগী বলে অভিহিত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা বলেন,” বৈঠকে দুই দেশের বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে প্রয়োজনীয় আলোচনা হয়েছে। ভারত আমাদের সবচেয়ে বড় বন্ধু দেশ। আমি আশা করবো বাংলাদেশি পাট ও পাটজাত পণ্যের আমদানিতে ভারত যে অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করেছে তা প্রত্যাহার করে নেবে”।

শনিবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সফর নিয়ে ব্রিফ করেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল।তিনি জানান, দুদেশের মধ্যে ৩৬টি চুক্তি-সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে।

ফেসবুক মন্তব্য
Share Button